যদি নরেন্দ্র মোদি আমেরিকার ট্রাম্প হতেন এবং সালমান খান হতেন আম্বানী, তবে কেমন হত?

0

টিডিএন বাংলা ডেস্ক : দেশের বর্তমান অশান্ত পরিবেশে দেশবাসী হাসতে ভুলে গিয়েছে। দৈনন্দিন জীবনে ভালো থাকার জন্য হাসিখুশি থাকা জরুরি। তাই আজ একটু হেসে নেওয়ার মতো কিছু হয়ে যাক। আর বর্তমান সময়ে তো কল্পনারও অন্ত নেই। আসুন দেখা যাক কিছু বিখ্যাত লোক অন্য কোনও বিখ্যাত লোকের জায়গা নিলে কেমন হত !

যদি ট্রাম্প হতেন নরেন্দ্র মোদি

মোদি ডোনাল্ড ট্রাম্প হলে হঠাতই হয়তো আমেরিকাগামী বিমান ঘুরিয়ে নিয়ে উত্তর কোরিয়ায় বিয়ে খেতে চলে যেতেন। রাশিয়ার সঙ্গে ট্রাম্পের বন্ধুত্ব সর্বজনবিদিত, তাই মোদি ট্রাম্প হলে ডলার বন্দি করে রুবেল চালু করে দিতেন। তার উপর মেক্সিকোয় একটি দেওয়াল তৈরীর চাপ থাকত। তখন ‘দেওয়াল বানানো হবেনা – দেওয়াল বানানো হবেনা’ বলে মোদির বিরোধিতা করত রিপাবলিকান পার্টি। মোদির আমেরিকা শাষনে হোয়াউট হাউসের নাম হতো ‘উজ্জ্বল জনকল্যাণ রাষ্ট্রপতি ভবন’। তিনি ডেমোক্রেট মুক্ত আমেরিকার শ্লোগান দিতেন। ম্যানুফ্যাকচারিং মুল্য বেড়ে যাওয়ায় তিনি মেক ইন আমেরিকার বিরোধিত করতেন।

যদি সালমান হতেন মুকেশ আম্বানী

সাল্লু ভাই আম্বানী হলে জিও’র নাম হতো ‘জিনে দো’। ভয়ের কথা হল, শাহরুখের ফ্যান ফিল্ম থিয়েটারের বদলে তিনি ফ্রি ইন্টারনেটে দেখিয়ে দিতেন। সালমান তখনও ভাইই থাকতেন, কিন্তু শুধুমাত্র অনিল তাকে ভাই বলে ডাকার অধিকার পেতো। সালমান নিজেও তখন আম্বানী নামই পছন্দ করতেন। কেননা মুকেস নামেও তো ‘কেস’ যুক্ত। রিলায়েন্স নাম থেকে ‘লায়ন্স’ সরিয়ে দেওয়া হতো। কারণ, ভাই তো টাইগার। আপাতত সালমান বেল্ট নাড়িয়ে সিনেমা চালাচ্ছেন, তখন ওয়ালেট নাড়িয়ে দেশ চালাতেন। ব্যবসার জন্য টাকাও লাগত না সালমানের। কোনও কাহীনি ছাড়াই যখন তিনি সিনেমা চালিয়ে দিতে পারেন, তাহলে টাকা ছাড়া ব্যবসা করতে পারতেন না?

বাবা রামদেব হতেন যদি আরবিআই গভর্নর

উর্জিত প্যাটেল হওয়ার পর বাবা রামদেবের নাম হত, অর্জিত প্যাটেল। কেননা বাবা শুধু অর্জন করার জ্ঞান দিয়ে থাকেন। তিনি আরবিআই-এর নাম পিএনবি করে দিতেন, যার মানে হল পতঞ্জলি ন্যাশনাল ব্যাঙ্ক। তিনি নোটবন্দি করতেন না, বরং গ্রাহকদের সকালে উঠে যোগ করা বাধ্যতামূলক করতেন। বাবা আরবিআই-এর গাইডলাইলে রোজ রোজ রদবদল করতেন না। শুধু প্রয়োজনের সময় তিনি পতঞ্জলির হার্বাল নোট বাজারজাত করতেন। লোকেরা এটিএমের লাইনে এক পায়ে দাঁড়িয়ে টাকা তুলতেন এবং সুস্থ থাকতেন।

রাহুল গান্ধী হতেন নরেন্দ্র মোদি

রাহুল গান্ধি যদি মোদি হতেন, তাহলে তিনি ছেঁড়া কুর্তা পরলেও তাতে নিজের নামের হলোগ্রাম লাগাতেন। দেশ তখন হঠাতই উন্নয়নের অমেঠি মডেল দেখতে পেত। লোকেরা জানতে পারত অমেঠির চেয়ে ঝাঁ চকচকে কোনও এলাকা নেই। তিনি নিজের বক্তব্যের শুরুতে বলতেন – ভাইয়ো মিত্রোঁ সে বাঁচো। দেশজুড়ে ‘মোদি লেহের’-এর বদলে ‘গান্ধি কি আঁধি’র মতো শব্দ শুনতে পাওয়া যেত।

(শুধুমাত্র মজার ছলে এই লেখা প্রকাশিত করা হয়েছে। লেখা এবং ছবি ইন্টারনেট থেকে সংগৃহিত। এরজন্য কতৃপক্ষ দায়ী নহে)