রিয়াজুলের রক্তে ভেজা বাসন্তী

0

রিয়াজুলের রক্তে ভেজা বাসন্তী

সমীরণ খাতুন

আমি গোষ্ঠী-দন্দ্ব বুঝিনা,
বুঝিনা দলাদলি জাতপাত।
সন্তান হারা মায়ের কান্না বুঝবে কি তোমরা?
বন্ধ হবে কি এ সংঘাত?

নিষ্পাপ অবোধ শিশুর রক্তে ভেসেছে
কত নগর-গ্রাম, অলিগলি-রাজপথ!
লুটেপুটে খায় ওরা যত রাজনীতির দালাল,
ভঙ্গ করে প্রতিশ্রুতি জনগণকে দেওয়া শপথ!

রাজনীতির ঐ ইন্দ্রজালে জড়ায় মূর্খের দল,
অসহায় দূর্বলকে দেখায় অসুর বীরের বল!
এ লাশ আমার সন্তানের, এক পুষ্প কোরকের,
এ লাশ আগামী ভবিষ্যৎ নাগরিকের
বুলেট ঝাঁঝরা ছোট্ট বুকটি রিয়াজুলের।

রক্তে রঞ্জিত ইউনিফর্ম, রক্তাক্ত ফুটপাত
জবাব চায় ছোট্ট শিশুর লাশ।
কে ঘোচাবে আমার মায়ের দুঃখ?
কে ঘোচাবে পিতৃহারা আমার বোনের অশ্রু?
নেতার আদরের পোষ্য কুকুর মরলে,
রাজপথে চলে শোকমিছিল, জ্বলে মোমবাতি।

গরীবের বংশপ্রদীপ নিভে গেল চিরতরে,
সে মনও নেই, সময়ও নেই, কে হবে সমব্যথী?
প্রতিনিয়ত দেখি রক্তাক্ত শিশুর লাশ,
মৌন আমি, স্তব্ধ আমি বাকরুদ্ধ আমার,
আমি শুধু বুঝি অকাল বোধন হল সন্তান মোর মার।

রক্তে ভেজা অন্ধকার কবরে-
অকালে তুমি ঘুমিয়ে থাকো চিরনিদ্রায়!
শিশুকন্ঠে রাতের নিস্তব্ধতা ভেদ করে,
প্রতিধ্বণিত হোক দিকে দিকে,
বন্ধ হোক এ নৃশংস বর্বরতা।
জেগে ওঠো মানব, জাগাও ঘুমন্ত মানবতা!
আর কত দেখবে অকাল বোধন নৃশংস বর্বরতা?