আন্দোলনের বাংলা আমার 

আন্দোলনের বাংলা আমার

মোকতার হোসেন মন্ডল

আমি বাংলায় থাকি বাংলায় লিখি বাংলায় করি গান

আমি বাংলায় আঁকি এই বাংলার হারানো সম্মান

বাংলা আছে বাংলা ছিল

বাংলা থাকবেই

কামদুনি আর নন্দীগ্রামে

বাংলা হাকবেই ।

শহিদ মিনার যদি চলে আসে

ছেচল্লিশের কোলে

ছিয়াত্তরের দুর্ভিক্ষ ফের আওয়াজ যদি তোলে

তবে সে পথে ক্ষুদিরাম ছিল

ক্ষুদিরাম থাকবেই

নজরুল ফের কারাগারে বসে

কবিতা লিখবেই

বাংলা আছে বাংলা ছিল

বাংলা থাকবেই

সিঙ্গুর আর রানাঘাটে

বাংলা হাকবেই ।

শিয়ালদহে কোন দিন যদি

বস্তি মেয়ে কাঁদে

সোনার বাংলায় কোনদিন যদি

ইটপাটকেল রাঁধে

তবে কোলকাতা ছিল কোলকাতা আছে

কোলকাতা থাকবেই

অ্যাকাডেমির দরজাপথে

কলকাতা হাকবেই ।

যদি কোনদিন অনাথ শিশু

রাজপথে চায় ভিক্ষা

যদি কোনদিন পতিতা মেয়ে

কেঁদে কেঁদে চায় শিক্ষা

আমার মায়ের স্বপ্ন যদি হয়

ঘুষের চেয়ারে বন্দি

কালারে কালারে যদি এঁটে যাও

বাংলা ভাঙার ফন্দি

তবে রাজপথ ছিল রাজপথ আছে রাজপথ থাকবেই

হিন্দুস্থানের বীর সন্তান

প্রতিবাদ করবেই ।

যেদিন দখিনা বাতাস আমাকে

দরজায় দেবে ঠেলা

যেদিন শাপলা জুঁই চ্যামেলি

বিকেলে করিবে খেলা

সেদিন আমার কলম বলবে

কাছে এসো সখা কাছে

সেদিন আমার হৃদয় হাসবে

ডুমুর বাগানে নেচে

গর্জে উঠে দুধের শিশু

নবান্নে এসে বলবে

বাংলা আছে বাংলা ছিল

বাংলা থাকবেই

প্রতিবাদ ছিল প্রতিবাদ আছে

প্রতিবাদ থাকবেই

কলকাতা ছিল কলকাতা আছে কলকাতা থাকবেই

প্রয়োজন হলে সন্ধে বেলায়

মোমবাতি জ্বলবেই।