মুসলিম ও ইসলামের বিরুদ্ধে ঘৃণা-বিদ্বেষ ছড়াতে ৭৪টি গ্রূপকে দেওয়া হচ্ছে বিপুল টাকা

0
সমগ্র আমেরিকাজুড়ে ইসলাম ও মুসলিম বিদ্বেষ ভাইরাস ছড়াতে অতি সক্রিয় ৭৪টি গ্রূপ নানান হীন কৌশলে, ছক কষে পরিকল্পনামাফিক এসব কর্মকান্ড চালিয়ে যাচ্ছে। রিপোর্টের প্রধান লেখক তথা কেয়ার-এর ডাইরেক্টর কোরে সেইলর অভিযোগ করেন, এই কাজে এত বিপুল পরিমাণ আর্থিক সাহায্য দেওয়ার পরিণামও বাস্তবে দেখা যাচ্ছে। যেমন আমেরিকার বিভিন্ন শহরে মসজিদগুলোয় হামলা চালানো হচ্ছে। মুসলিমদের ওপর নানারকম নিষেধাজ্ঞা আনতে আইন বা নির্দেশিকা জারি করা হচ্ছে।
রিপোর্টে অভিযোগের তির শনানো হয়েছে, ভাইস প্রেসিডেন্ট হওয়ার দৌড়ে এগিয়ে থাকা জেফ শেসন, যিনি বর্তমানে ট্রাম্পের জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা পরিষদের চেয়ারম্যান। এই সেশনকে সংবর্ধনাও দিয়েছিল সেন্টার ফর সিকিওরিটি পলিসি ও ডেভিড হরউইটজ ফ্রিডম সেন্টার। ট্রাম্পের বিদেশনীতি সংক্রান্ত দুই উপদেষ্টার বিরুদ্ধেও ওইসব কট্টর মুসলিম বিদ্বেষী গ্রূপের সঙ্গে ঘনিষ্ঠ যোগাযোগের অভিযোগ আনা হয়েছে। জশেফ স্কিমটজ ও ওয়ালিদ ফারেস ‘ অ্যাক্ট ফর আমেরিকা’র সঙ্গে যুক্ত ছিলেন। এই চাঞ্চল্যকর রিপোর্টের ব্যাপারে সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের জিজ্ঞাসা করা হলে তারা অবশ্য কোনো প্রতিক্রিয়া জানাননি।

উল্ল্যেখ, অ্যাক্ট ফর আমেরিকা সংস্থাটি শিক্ষামূলক হলেও এরা মূলত মার্কিন মুসলিমদের সম্পর্কে গোপনে নানারকম তথ্য সংগ্রহ করে। যা সাইবার ক্রাইমের পর্যায়ে পড়ে। এই গ্রূপের ওয়েবসাইটে বলা হয়েছে, জাতীয় নিরাপত্তা ও সন্ত্রাসবাদ প্রসঙ্গে এবং জিহাদের ডাক দিয়ে কিভাবে অভ্যন্তরীণ সন্ত্রাসবাদে ঘৃতহুতি দেওয়া হয়, সেই সংক্রান্ত তথ্যসমৃদ্ধ শিক্ষা দেওয়া হয়। এই মোড়কে সংস্থাটি কিন্তু আসলে মুসলিম বিদ্বেষী কর্মকান্ডে ঘৃতহুতি হয়। অভিযোগ, আমেরিকার মুসলিম স্টুডেন্টস অ্যাসোশিয়ানের সদস্যদের সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য ছাড়াও মসজিদ, ইসলামিক সেন্টার ও মুসলিম শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলো সম্পর্কে গোপনে তথ্য সংগ্রহ করে। কেয়ার ও ইউসিবি-যৌথ রিপোর্টে আরও বলা হয়েছে, আমেরিকার ১০টি প্রদেশে ইসলাম বিরোধী বিল পাস হয়েছে এবং ২০১৫ সালে বিভিন্ন মসজিদকে টার্গেট করে চালানো হামলার ৭৮টি ঘটনা নথিবদ্ধ হয়েছে।