টিডিএন বাংলা ডেস্ক: সৌদি আরবের সরকারি টেলিভিশন চ্যানেলে সন্ধ্যার নিউজ বুলেটিন পড়ে ইতিহাসে ঢুকে পড়লেন উইম আল দাখিল নামে এক নারী।

সৌদি আরবের ক্রাউন প্রিন্স মুহাম্মদ বিন সালমানের হাত ধরেই অবশ্য নারীদের একের পর এক যুগান্তকারী পদক্ষেপ শুরু হয়েছে।

তার ঘোষিত ভিশন ২০৩০ এর আওতায় গাড়ি চালানোর অনুমোদন থেকে শুরু করে নারীরা মাঠে বসে খেলা দেখা এমনকি সিনেমাহলে গিয়ে সিনেমা দেখারও অনুমতি পেয়েছে।

ক্রাউন প্রিন্সের সেই ঘোষণাই ছিল কার্যত যুগান্তকারী। বিভিন্ন ক্ষেত্রে নারীদের নিয়োগের ওপর শতাব্দী প্রাচীন নিষেধাজ্ঞা তুলে নেওয়ার কথাও জানিয়েছেন ক্রাউন প্রিন্স।

গকতাল রবিবার সন্ধ্যায় সরকারি টিভি চ্যানেল সৌদি টিভি ওয়ান-এ সবাইকে চমকে দিয়ে খবর পড়েন উইম আল দাখিল। অন্যান্য সব ক্ষেত্রের মতোই তিনিও যে কোনো পুরুষের চেয়ে কম যান না, প্রথম দিনই তার ইঙ্গিত দিয়ে রাখলেন উইম। সৌদি টিভিও গর্বের সঙ্গে উইম আল দাখিলের নিয়োগের কথা টুইট করে জানিয়েছে।

ক্রাউন প্রিন্সের ওই ঘোষণার পর থেকেই বেসরকারি শিল্পক্ষেত্রে নারীদের নিয়োগ শুরু হয়েছে। এ মাসেই রিয়াদের বিমান সংস্থা ফ্লাইনাস বিমানে কো-পাইলট এবং ফ্লাইট অ্যাটেন্ডেন্ট হিসেবে নারীদের নিয়োগ করা হবে।

তার আগে জুন মাসেই নারীদের গাড়ি চালানোর ওপর নিষেধাজ্ঞা তুলে নেওয়া হয়।তার পর থেকে রাস্তায় গাড়ি নিয়ে বেরে হচ্ছেন নারীরা।

চলতি বছরের মার্চেই সৌদিতে প্রথম আয়োজন করা হয় নারীদের দৌড়। তাতেও বিপুল সাড়া পড়ে। আর তার পর নয়া ইতিহাস গড়লেন উইম।

এর আগে ২০১৬ সালে অবশ্য চেষ্টা হয়েছিল। একটি বেসরকারি টিভি চ্যানেলে সকালের দিকে খবর পড়তে দেখা গিয়েছিল জুমানা আল শামি-কে।

সেদিক থেকে প্রথম টিভি অ্যাঙ্কর হিসেবে জুমানার নাম থাকলেও উইমই প্রথম সরকারি টিভি চ্যানেলের পেশাদার নারী অ্যাঙ্কর। তার হাত ধরেই সৌদিতে নারী বিপ্লবের এক নবযুগের সূচনা হলো বলেই মনে করছে বিশ্ববাসী।