টিডিএন বাংলা ডেস্ক : মুসলিম উম্মাহর হৃদয়ের স্পন্দন পবিত্র কাবা শরিফ ও মসজিদে নববি। যা সৌদি আরবের পবিত্র নগরী মক্কা মুকাররামাহ এবং মদিনা মুনাওয়ারায় অবস্থিত। কাবা শরিফ ও মসজিদে নববি আল্লাহ ও তাঁর রাসুলের অনন্য নিদর্শন। আর তা মুমিন মুসলমানের ইশক ও মহব্বতের কেন্দ্রবিন্দু।
যারা নিজেদেরকে বাইতুল্লাহ ও মসজিদে নববির খেদমতে নিয়োজিত করতে পেরেছে, তারা নিজেদের ধন্য মনে করছে। যার প্রমাণ মেলে দৃষ্টি ও শারীরিক প্রতিবন্ধীদের কাবা শরিফ আঙ্গিনা তথা তাওয়াফের স্থান পরিচ্ছন্নতার কাজে অংশ গ্রহণ। আর এটি নিঃসন্দেহে মাওলার সঙ্গে বান্দার প্রেমের বহিঃপ্রকাশ।
আবার উম্মতে মুহাম্মাদির এমন কেউ আছে কি? যে মদিনার আশেক হতে চায় না। তারই প্রমাণ মিলে বয়সের ভারে নুহ্য সাদা দাঁড়ির বয়োবৃদ্ধ এক আশেকে রাসুলের মাঝে। যে নাকি পরম মায়া-মমতায়-ভালবাসায় প্রিয়নবি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের মসজিদে নববির অভ্যন্তরভাগের স্থাপনা পরিচ্ছন্নতায় নিমগ্ন।
তাইতো যুগে যুগে মানুষ মক্কা ও মদিনার প্রেমে দেওয়ানা হয়ে পায়ে হেঁটে, সাইকেল চালিয়ে, নৌপথে নৌকা ও জাহাজে চড়ে, কেউবা মোটরবাইক ও বাসে চড়ে স্থলপথে আবার অনেকেই বিমানে উড়ে হাজির হয় হজ ও তাওয়াফে বাইতুল্লাহ এবং জিয়ারাতে মদিনায়।
আল্লাহ তাআলা মুসলিম উম্মাহকে পবিত্র স্থানদ্বয়ের আশেক হিসেবে কবুল করুন। শারীরিক ও দৃষ্টিপ্রতিবন্ধী এবং বয়োবৃদ্ধ আশেকের প্রেম-ভালোবাসা হোক উম্মতে মুহাম্মাদির অনুপ্রেরণা। (তথ্যসূত্র : জাগো নিউজ)