বামপন্থীরা কি বিজেপি-র কাছে মতাদর্শগত শত্রু?

0

টিডিএন বাংলা ডেস্ক: বিজেপি-র উত্থানের পথে বামপন্থীরাই যে তাঁদের কাছে প্রধান বাধা, শনিবার ত্রিপুরার নির্বাচনী ফল নিয়ে প্রবল উচ্ছ্বাস প্রকাশ করে তা ফের স্পষ্ট বোঝালেন মোদী এবং শাহ। দুজনের প্রতিক্রিয়াতেই বিশেষ জায়গা পেল ত্রিপুরা। দুজনেই কার্যত বোঝালেন, বামপন্থীদের পরাজিত করতে পারাই সব থেকে বড় সাফল্য বি জে পি-র। খবর গণশক্তির। ওই খবরে আরও বলা হয়েছে,প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী দাবি করলেন, উন্নয়নের দৃ‌ঢ় কর্মসূচি এবং শক্তিশালী সংগঠনের কারণেই ত্রিপুরায় বি জে পি জিতেছে। এই জয়কে ‘শূন্য থেকে শিখরে’ উত্থান বলেও অভিহিত করেছেন তিনি। উত্তর-পূর্বের তিন রাজ্য ত্রিপুরা, নাগাল্যান্ড এবং মেঘালয়ের ফলাফল নিয়ে মোদী এদিন টুইটারে পরপর প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন। সেখানেই তাঁর এই সব মন্তব্য উঠে এসেছে। রাজস্থান এবং মধ্য প্রদেশে রাজ্য সরকারে থাকা সত্ত্বেও এই সেদিন উপনির্বাচনে বি জে পি-র শোচনীয় পরাজয়ের পরেও তিনি এদিন দাবি করেছেন, এন ডি এ-র ইতিবাচক এবং উন্নয়নমুখী কর্মসূচিতে আস্থা রাখছেন জনগণ। যখন একের পর এক সংখ্যালঘু এবং দলিত সম্প্রদায়ের মানুষ বি জে পি-শাসিত রাজস্থান, উত্তর প্রদেশ, হরিয়ানায় আর এস এস-র মতাদর্শে বিশ্বাসী হিন্দুত্ববাদীদের হিংস্র আক্রমণের শিকার হচ্ছেন, তখন প্রধানমন্ত্রীর দাবি,ত্রিপুরায় বি জে পি-র কোনও সাধারণ নির্বাচনী জয় হয়নি। ‘অত্যাচারী শক্তি এবং ভীতি প্রদর্শন’-এর বিরুদ্ধে জয়ী হয়েছে গণতন্ত্র। মোদী এদিন নয়াদিল্লিতে বি জে পি-র সদরদপ্তরে দলীয় কর্মীদের এক সভায় ভাষণ দিতে গিয়েও বামপন্থীদের তীব্র আক্রমণ করেছেন। সেখানে তিনি দাবি করেছেন, ত্রিপুরা, কেরালা এবং পশ্চিমবঙ্গে বামপন্থীরা রাজনৈতিকভাবে কিছু বিবেচনা করে না, শুধু হিংসার পথে হাঁটে। নিজেদের রক্ষা করতে তাঁরা যদি পালটা হাত তোলেন, তাহলে বামপন্থীরা তাঁদের বিরুদ্ধে প্রতিহংসার অভিযোগ আনেন।
বি জে পি-র সর্বভারতীয় সভাপতি অমিত শাহও এদিন বলেছেন, যেভাবে নরেন্দ্র মোদীর নেতৃত্বাধীন সরকার গরিব এবং অনগ্রসর অংশের মানুষের স্বার্থ দেখছে, উত্তর-পূর্বের তিন রাজ্যে বি জে পি-র জয় তার স্বীকৃতি। তিনি এই জয়কে কর্ণাটকের আসন্ন ভোটে বি জে পি-র জয়ী হওয়ার ইঙ্গিত বলেও দাবি করেছেন। এদিন নয়াদিল্লিতে এক সাংবাদিক সম্মেলনে একথা বলেন শাহ। বিশেষভাবে ত্রিপুরায় জয়কে যে তাঁদের দল অন্য চোখে দেখছে, তা জানাতেও ভোলেননি তিনি। বি জে পি সভাপতি বলেছেন, উত্তর-পূর্বের তিন রাজ্যের মধ্যে ত্রিপুরায় জয় ঐতিহাসিক। পশ্চিমবঙ্গ আগেই বামপন্থীদের বিদায় জানিয়েছে, এবার ত্রিপুরাও জানাল। আজকের ফলে প্রমাণিত, দেশের কোথাও বামপন্থীরা জনগণের কাছে গ্রহণযোগ্য নয়। ত্রিপুরার ফল তো পশ্চিমবঙ্গ ও কেরালার বি জে পি কর্মীদের কাছে সব থেকে খুশির খবর। বামপন্থীরাই যে বি জে পি-র কাছে মতাদর্শগত মূল শত্রু, এভাবেই তা এদিন ঘুরিয়ে স্বীকার করে নিয়েছেন অমিত শাহ। তিনি এদিন আরও বলেছেন, বি জে পি-কে এখন আর হিন্দি বলয়ের দল বলা যাবে না। বি জে পি এখন সর্বভারতীয় দল।