ভোলবদল মোদীর, গরম বুলি ছেড়ে আলোচনায় বসছেন পাকিস্তানের সঙ্গে!

ক্ষমতায় আসার আগে মোদীই বলেছিলেন – ‘পাকিস্তানকে তাদের ভাষাতেই জবাব দিতে হবে, এই লাভ লেটার লেখা বন্ধ হোক’

0

টিডিএন বাংলা ডেস্ক : পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান ভারতের সঙ্গে পুনরায় আলোচনা শুরু করতে চেয়ে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে চিঠি দিয়েছেন। খুব স্পষ্টভাবে এবং উল্লেখযোগ্যভাবে বলতে গেলে নিউইয়র্কে চলমান জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদের অধিবেশনে এই মাসের শেষে পাকিস্তানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাহমুদ কোরেশী এবং পররাষ্ট্রমন্ত্রী সুষমা স্বরাজের বৈঠকের কথা বলেছেন তিনি।

পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের আহ্বানে সাড়া দিয়ে নিউইয়র্কে পররাষ্ট্রমন্ত্রী পর্যায়ের বৈঠকে বসতে রাজি হয়েছে কেন্দ্র। পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র রবীশ কুমার বলেছেন, নিউইয়র্কে জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদের আসন্ন বার্ষিক বৈঠকের অবকাশে পররাষ্ট্রমন্ত্রী সুষমা স্বরাজ ও পাকিস্তানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী শাহ মাহমুদ কুরেশির মধ্যে বৈঠক হবে।

তবে বৈঠকের দিনক্ষণ দুই দেশ আলোচনার মাধ্যমে ঠিক করবে। উল্লেখ্য, পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী নির্বাচিত হওয়ার পর ইমরান খানকে অভিনন্দন জানিয়ে একটি চিঠি লিখেছিলেন নরেন্দ্র মোদী। সেই চিঠিতে বলা হয়েছিল, সুসম্পর্ক রক্ষার একমাত্র উপায় গঠনমূলক আলোচনার মাধ্যমে শান্তি স্থাপন।

গত কয়েকসপ্তাহ ধরে এই কানাঘুষা চলছিলো যে রাষ্ট্রসংঘের সাধারণ পরিষদের অধিবেশনে সুষমা স্বরাজ এবং মাহমুদ কোরেশী মধ্যে বৈঠক হবে কিনা। গত মাসে পাকিস্তানে নতুন সরকার ক্ষমতায় আসার পর এ চিঠির মাধ্যমে দুই দেশের পারস্পরিক সম্পর্ক উন্নয়নে আলোচনার জন্য প্রথম আনুষ্ঠানিক প্রস্তাব দিলেন ইমরান খান।

কূটনৈতিক সূত্রে জানা যায়, ইমরান খান বলেছেন তিনি দ্বি-পাক্ষিক আলোচনা পুনরায় শুরু করতে চান। এর আগে ২০১৫ সালে আলোচনা শুরু হলেও পাঠানকোট হামলার কারণে তা বন্ধ হয়ে যায়। এরই প্রেক্ষিতে ইমরান খান বলেন ভারত এবং পাকিস্তানের গুরুত্বপূর্ণ পারস্পরিক স্বার্থসংশ্লিষ্ট বিষয়গুলো আলোচনার মাধ্যমে সমাধান করা উচিত। বিশেষ করে সন্ত্রাসবাদ এবং কাশ্মিরের মতো বিতর্কিত বিষয়গুলো নিয়ে দ্বি-পাক্ষিক আলোচনা করতে হবে।

এর আগে ২০১৫ সালে ডিসেম্বরে পররাষ্ট্রমন্ত্রী সুষমা স্বরাজ এশিয়া সম্মেলনে যোগ দিতে ইসলামাবাদ সফরে যান। সেটাই দু’দেশের মধ্যে শেষ আনুষ্ঠানিক আলোচনা।