গেরুয়া শিবিরের পর্দাফাঁস : মুসলিম মহিলাদের লোভ দেখিয়ে তিন তালাক বিরোধী পরিকল্পনা করেছিল বিজেপি !

0
টিডিএন বাংলা ডেস্ক : তিন তালাক ইস্যুতে মুসলিম মহিলাদের নিজেদের পক্ষে টানার অভিযানে জোর ধাক্কা খেল গেরুয়া শিবির। বিনামূল্যে বাড়ি ও শীতের কম্বল দেওয়ার লোভ দেখিয়ে প্রায় ৪০ জন মুসলিম মহিলাকে রাজি করে ফেলেছিল বিজেপি কর্মীরা। কিন্তু ওই মুসলিম মহিলারা যখন জানতে পারেন যে, বিজেপি তাদের লোভ দেখিয়ে রাজনৈতিক ফায়দা তুলতে চাইছে তখন তারা কম্বল ফিরিয়ে দেন এবং বিজেপির পতাকা রাস্তায় ফেলে প্রতিবাদ জানান। শুধু তাই নয়, পরিস্থিতি এমন দাঁড়ায় যে ওই মুসলিম মহিলাদের ভুল বুঝিয়ে নিয়ে আসা বিজেপি নেতা সমর গজনী ও তার স্ত্রীকে প্রাণ বাঁচিয়ে পালাতে হয়।
মুসলিম মহিলাদের তিন তালাকের সমর্থনে নিয়ে আসার জন্য গত রবিবার মুজাফফরনগরের টাউন হলে একটি অনুষ্ঠানের আয়োজন করেছিল বিজেপি। এই অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে আমন্ত্রিত ছিলেন বিজেপি সাংসদ সঞ্জীব বালিয়ান। সূত্রের খবর, রবিবার সকালে বিজেপি নেতা সমর গজনী তার স্ত্রী রুবিকে নিয়ে কিদওয়াই মহল্লায় যান এবং সেখানকার মুসলিম মহিলাদের ওই অনুষ্ঠানে যাওয়ার জন্য প্রলুব্ধ করেন। স্থানিয় বাসিন্দা সামিনার কথায়, বিজেপি নেতা সমর তাদের বলেছিলেন যে সেখানে মোদিজীর ‘সবকা সাথ, সব কা বিকাশ’ প্রকল্প অনুযায়ী কম্বল বিতরণ করা হবে। সামিনা বলেন, এই কথা শোনার পর এলাকার ৩০-৩৫ বছর বয়সী মহিলারা সেখানে গিয়ে উপস্থিত হলে তাদের বিজেপির পতাকা ধরতে বলা হয়। কিছু মহিলা পতাকা ধরতে অস্বীকার করলে বিজেপি নেতা সমর বলেন, মাত্র কয়েক মিনিটের ব্যাপার। এরপরই আপনাদের বাড়ি দেওয়ার জন্য নাম লিখে নেওয়া হবে এবং কম্বল দেওয়া হবে।
এই অনুষ্ঠানে উপস্থিত সমস্ত মুসলিম মহিলাই বুরখা পরে ছিলেন। এই অনুষ্ঠান শুরু হওয়ার আগেই সেখানে ভিড় জমিয়েছিলেন একঝাক স্থানীয় সাংবাদিক। এই অনুষ্ঠান শুরু হওয়ার ঠিক আগে সেখানে উপস্থিত হন সমাজবাদী পার্টির নেতা শওকত আনসারি এবং সাজিদ হাসান। তাদের সঙ্গে ছিলেন একজন মাওলানা। ফরিদা নামের এক মহিলা বলেন, ‘সমাজবাদী নেতারা আমাদের জিজ্ঞেস করেন যে, আপনারা কি তিন তালাক ইস্যুতে কেন্দ্র সরকারকে সমর্থন করতে এই অনুষ্ঠানে এসেছেন? জবাবে আমরা না বললে সমাজবাদী নেতারা বলেন, আসলে আপনাদের ভুল বুঝিয়ে, লোভ দেখিয়ে তিন তালাক বিলের সমর্থনে প্রচার করার জন্য ডাকা হয়েছে।‘ এই ঘটনার পর সেখানে জোরদার প্রতিবাদ করেন ওই মুসলিম মহিলারা। বিজেপির পতাকা ফেলে দেওয়ার পাশাপাশি বিজেপি নেতাদের মারতে উদ্যত হন তারা। কোনক্রমে পালিয়ে বাঁচেন বিজেপি নেতারা।
উল্লেখ্য, বিজেপি সরকার তিন তালাক ইস্যুতে জনসমর্থন জোগাড় করতে ব্যতিব্যস্ত হয়ে পড়েছে। প্রায় সময়ই বিজেপির বিরুদ্ধে অভিযোগ উঠেছে যে, তারা হিন্দু মহিলাদের বুরখা পরিয়ে মুসলিম সাজানোর চেষ্টা করছে। কিন্তু, এইবারের ঘটনায় মহিলারা মুসলিম হলেও, তাদের বিভ্রান্ত করে নিয়ে আসা হয়েছিল।