এবার ইভিএম ষড়যন্ত্রে সরব ‘আম আদমি’ কেজরিওয়াল

0

টিডিএন বাংলা ডেস্ক : পাঞ্জাবে এবারের বিধানসভা নির্বাচনে ব্যবহৃত ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিন (ইভিএম) নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী ও আম আদমি পার্টির (আপ) প্রধান অরবিন্দ কেজরিওয়াল। গতকাল বুধবার তিনি বলেন, রাজ্যে ক্ষমতায় থাকা আকালি ও বিজেপি জোট আপের ২০ থেকে ২৫ শতাংশ ভোট পরিবর্তন করে নিজেদের ঝুড়িতে ভরেছে। কিছু কিছু জায়গায় আপ তার কর্মী – সমর্থকের সংখ্যার চেয়েও কম ভোট পেয়েছে বলে দাবি করেছেন তিনি।

অরবিন্দ কেজরিওয়াল সাংবাদিকদের বলেন, ‘পাঞ্জাবের শ্রী গোবিন্দপুরে আমরা এক ভোট পেয়েছি। সেখানে আমাদের কর্মী আছেন পাঁচজন, যাঁরা আমাদের ভোট দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন। রাজ্যজুড়েই ঘটেছে এমন ঘটনা। তাহলে সব ভোট কোথায় গেল ? বড় ধরনের কোনো গোলমাল হয়েছে। আমাদের সুপ্রিম কোর্টও এর আগে বলেছিলেন—ইভিএম দিয়ে নির্বাচনে জালিয়াতি করা সম্ভব। এটা আমার নয়, সুপ্রিম কোর্টের কথা।’
ইভিএমের মাধ্যমে জালিয়াতি করা যায় বলে অনেক দেশে এর ব্যবহার বাতিল করা হয়েছে দাবি করে আপ প্রধান বলেন, স্বাধীন ও নিরপেক্ষ নির্বাচন অনুষ্ঠানে দেশে ইভিএম ব্যবহার বাতিল করা উচিত।
এদিকে কেজরিওয়ালের তোলা প্রশ্নের জবাবে আকালি দলের প্রধান প্রকাশ সি বাদলের পুত্রবধূ কেন্দ্রীয় মন্ত্রী হারসিমরাত কৌর বাদল বলেন, ‘তিনি (কেজরিওয়াল) মানসিক ভারসাম্য হারিয়ে এসব বকছেন। দিল্লিতে আপ যখন ৬৭ আসন পেল তখন তো কিছু বলেননি। তাঁর আসলে মেডিটেশন (ধ্যান) করা উচিত।’

পাঞ্জাবের বিধানসভা নির্বাচনের ফলাফল ঘোষণা হওয়ার পর কেজরিওয়াল গণমাধ্যমকে বলেছিলেন, তিনি জয়ের প্রত্যাশা করেছিলেন। উল্লেখ্য, পাঞ্জাবের ১১৭ আসনের মধ্যে ৭৭টি আসন পায় কংগ্রেস। আপ পায় মাত্র ২০টি। কিন্তু বুথফেরত জরিপে এই রাজ্যে কংগ্রেস ও আপের হাড্ডাহাড্ডি লড়াইয়ের আভাস মিলেছিল।
এর আগে উত্তর প্রদেশের নির্বাচনে বিজেপি বিপুল ভোটের ব্যবধানে জয়ী হওয়ার পর রাজ্যের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী সমাজবাদী পার্টির নেত্রী মায়াবতী বলেছিলেন, ইভিএমের মাধ্যমে ব্যাপক জালিয়াতি হয়েছে। তিনি নির্বাচন কমিশনে অভিযোগ করবেন। আদালতে যাওয়ার হুমকি দিয়ে মায়াবতী বলেছিলেন, সাধারণ ভোটাররাও ইভিএমে বিশ্বাস করেন না।