এই ফুটবলারের দাম ৮৩৭ কোটি ৪০ লাখ টাকা!

0

টিডিএন বাংলা ডেস্ক: লিভারপুলের জার্সি হাতে ফন ডাইক। সবচেয়ে দামি স্ট্রাইকার নিয়েই সবার আগ্রহ থাকে বেশি। তেমন কিছু না ঘটলে ডিফেন্ডারদের খোঁজ কেউ রাখে না। ভার্জিল ফন ডাইক এমন কিছুই ঘটিয়ে ফেলেছেন যে এখন তাঁর ব্যাপারে সবাই আগ্রহী। হল্যান্ডের এই সেন্টার ব্যাক এখন ইতিহাসের সবচেয়ে দামি ডিফেন্ডার!

ফন ডাইক সর্বশেষ দলবদলের মৌসুমেই যোগ দিতে চেয়েছিলেন লিভারপুলে। এ জন্য সাউদাম্পটনের কাছে ট্রান্সফারের আবেদন করেছিলেন। কিন্তু তখন দুই ক্লাবের মধ্যে ব্যাটে-বলে হয়নি। লিভারপুল কোচ ক্লপও অপেক্ষায় ছিলেন। শেষ পর্যন্ত গতকাল ৭ কোটি ৫০ লাখ পাউন্ড ট্রান্সফার ফি মূল্যে সাধের খেলোয়াড়টিকে সই করাতে পেরেছেন ক্লপ। বাংলাদেশি মুদ্রায় অঙ্কটি প্রায় ৮৩৭ কোটি ৪০ লাখ টাকা!

বিশাল অঙ্কের এই ট্রান্সফার দিয়ে ম্যানচেস্টার সিটির গড়া সবচেয়ে দামি ডিফেন্ডার কেনার রেকর্ডটি ভেঙে ফেলল লিভারপুল। গত জুলাইয়ে টটেনহাম হটস্পারের ইংলিশ রাইট ব্যাক কাইল ওয়াকারকে ৫ কোটি ৪০ লাখ পাউন্ডে কিনে রেকর্ডটি গড়েছিল সিটি। কিন্তু এখন সেই রেকর্ড লিভারপুলের, যেখানে ওয়াকারকে টপকে ফন ডাইক হলেন বিশ্বের সবচেয়ে দামি ডিফেন্ডার।

সেই আনন্দে ফন ডাইকের টুইট, ‘লিভারপুলে যোগ দিতে পেরে আমি আনন্দিত এবং সম্মানিত বোধ করছি। আজকের দিনটা আমার এবং পরিবারের জন্য ভীষণ গর্বের।’ অ্যানফিল্ডের ক্লাবটিতে তাঁর সাপ্তাহিক পারিশ্রমিক ১ লাখ ৮০ হাজার পাউন্ড। সাম্প্রতিক বছরগুলোয় ভালো ডিফেন্ডার কিনতে ক্লাবগুলো যে টাকা খরচ করতে কার্পণ্য করছে না, তার প্রমাণ শীর্ষ চার ডিফেন্ডারের ট্রান্সফার ফি। এ চারজনের ট্রান্সফার ফিই ন্যূনতম ৫ কোটি পাউন্ডের ওপরে!

গত জুলাইয়ে মোনাকো থেকে বেনজামিন মেন্ডিকে ৫ কোটি ২০ লাখ পাউন্ড দামে কিনেছিল ম্যানচেস্টার সিটি। তিনি বিশ্বের তৃতীয় সর্বোচ্চ দামি ডিফেন্ডার। এ তালিকায় চতুর্থ ডেভিড লুইজের (চেলসি থেকে পিএসজি) ট্রান্সফার ফি ৫ কোটি পাউন্ড। ফন ডাইকের ট্রান্সফার ফি ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগের ইতিহাসে যুগ্মভাবে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ। এভারটন থেকে এ বছর ৭ কোটি ৫০ লাখ পাউন্ড ট্রান্সফার মূল্যে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডে যোগ দিয়েছেন রোমেলু লুকাকু। ৯ কোটি পাউন্ড ট্রান্সফার মূল্য নিয়ে তালিকাটির শীর্ষে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের পল পগবা।

লিভারপুলে ১ জানুয়ারি আনুষ্ঠানিকভাবে যোগ দেবেন ফন ডাইক। গতকালই তাঁর স্বাস্থ্য পরীক্ষা হয়েছে অ্যানফিল্ডে। ফন ডাইককে কিনতে চেষ্টার কমতি রাখেনি লিভারপুল। এমনকি বছরের শুরুতে অভিযোগ উঠেছিল, ফন ডাইককে দলে টানতে লিভারপুল ‘অবৈধ পন্থা’ বেছে নিচ্ছে! এ জন্য ক্ষমাও চাইতে হয়েছিল ক্লাবটিকে। দৌড়ে ছিল ম্যানচেস্টার সিটির মতো ক্লাবও। ফন ডাইকের জন্য তাদের দুই দফা প্রচেষ্টা ব্যর্থ হয়েছে। শেষ পর্যন্ত লিভারপুলের চেষ্টা সফল হলেও ইউনাইটেডের সাবেক রাইট ব্যাক গ্যারি নেভিল প্রশ্ন তুলেছেন, ‘এটা অনেক টাকা, কিন্তু আমি ঠিক নিশ্চিত নই, সে ওই মানের খেলোয়াড় কি না।’(প্রথম আলো)

tdn_bangla_ads