নিজস্ব প্রতিনিধি, টিডিএন বাংলা : সাম্প্রতিক সময়ের সবচেয়ে ভয়াবহ বাস দুর্ঘটনার সাক্ষী রইলো মুর্শীদাবাদের দৌলতাবাদ। কেউবা ফিরে এসেছেন মৃত্যু মুখ থেকে। তাদের চোখে মুখে এখনো আতঙ্কের ছাপ। শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত ৯জন মহিলা ও শিশু সহ মোট ৩৬ জনের দেহ উদ্ধার করা সম্ভব হয়েছে। ঘুমের মধ্যেই সলিলসমাধি ঘটে বাসের অধিকাংশ যাত্রীদের।

ঐ অভিশপ্ত বাসটিতে কম পক্ষে ৫০ থেকে ৬০ জন যাত্রী ছিল বলে অনুমান স্থানীয়দের। এনডিআরএফ ও রাজ্যের বিপর্যয় মোকাবিলা দফতরের কর্মীদের দীর্ঘ ৮-১০ ঘন্টার যৌথ প্রচেষ্টায় দেহ গুলি উদ্ধার হয়। দেহগুলি ময়না তদন্তের জন্য মুর্শিদাবাদ মেডিক্যাল কলেজে পাঠানো হয়েছে। ঘটনাস্থলে ছুটে আসেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সহ রাজ্যের উচ্চ পর্যায়ের প্রতিনিধি দল। শনাক্ত করার পর দেহ গুলি পরিবারের হাতে তুলে দেবার নির্দেশ দেন তিনি।

এখনো পর্যন্ত ২৪ জনের দেহ শনাক্ত করেছেন পরিবারের লোকেরা। মৃতদের তালিকায় রয়েছেন সৌমিত্র নন্দী, জানু শাহ, ফারু শেখ, কৃষ্ণদাস চক্রবর্তী, ঋষিকেশ শর্মা, সুফিয়া খাতুন, তামান্না ইয়াসমিন, ছায়ারানী মাহাতো, রিপন শেখ, মনিরুল ইসলাম, জ্যোতিপ্রকাশ মাহাতো, সঞ্জয় সরকার, জয়শ্রী চক্রবর্তী, রুম্পা প্রামানিক, দেব প্রামানিক, মোজাম্মেল মন্ডল। বাকিদের খোঁজে তল্লাশি চলছে।