জনসেবার মাধ্যমেই আত্মপ্রকাশ করলো ‘আল-হারামাইন মুজাদ্দেদীয়া ওয়ালফের ট্রাস্ট’

0

সেখ সাদ্দাম হোসেন, টিডিএন বাংলা, দেগঙ্গা: জনসেবার মাধ্যম দিয়েই আত্মপ্রকাশ করলো ফুরফুরা শরীফের আল-হারামাইন মুজাদ্দেদীয়া ওয়ালফেয়ার ট্রাস্ট। ফুরফুরা শরীফ মুজাদ্দিদে জামান দাদাহুজুর পীর কেবলা (রহঃ)-র মতাদর্শে প্রতিষ্ঠিত এই অরাজনৈতিক স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনটির শুভ উদ্বোধন হয় শনিবার। দেগঙ্গার ঝাঁপাতে অনুষ্ঠিত এই উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন ‘আল-হারামাইন মোজাদ্দেদীয়া ওয়ালফেয়ার ট্রাস্ট’-এর সম্পাদক পীরজাদা সাহিম সিদ্দিকী, সহ-সম্পাদক পীরজাদা তামিম সিদ্দিকী, বিশিষ্ট ক্বারী হেদায়তুল্লাহ, ট্রাস্টের সভাপতি সাইফুল রহমান সহ এলাকার জ্ঞানীগুণী বুদ্ধিজীবী সহ আরও অনেকে। ব্যাঙের ছাতার মত গজিয়ে ওঠা স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনগুলির স্রোতে গা ভাসিয়ে নয়, সম্পূর্ণ স্বতন্ত্র ভাবে মানব সেবা ও দ্বীনের খেদমতের লক্ষ্য নিয়ে এই সংগঠন গড়ে উঠেছে বলে জানান সংগঠনের প্রতিষ্ঠাতা, সম্পাদক পীরজাদা সাহিম সিদ্দিকী।

এদিন সকাল থেকেই ট্রাস্টের পক্ষ থেকে বিশিষ্ট ডাক্তারের মাধ্যমে কয়েক হাজার অসহায় মানুষের দাতব্য চিকিৎসার ব্যবস্থা করা হয়। ধর্ম-বর্ন-নির্বিশেষে বিতরণ করা হয় কয়েক হাজার বস্ত্রও। ট্রাস্টের সহ সম্পাদক পীরজাদা তামিম সিদ্দিকী বক্তব্য রাখতে গিয়ে নবী মুহাম্মদ(সঃ)-এর মানবসেবার কথা তুলে ধরে বলেন, “নবী(সঃ) বলেছেন মানুষের সেবায় হল আসল সেবা। অসহায় গরীব মানুষের পাশে দাঁড়ানো একজন প্রকৃত মানুষের প্রধান কর্তব্য গুলির একটি। আর আমাদের ট্রাস্টেরও কাজ হবে সুবিধাবঞ্চিত, অসহায় ও গরীব শিশু থেকে ধরে বৃদ্ধ, ধর্ম-বর্ন-নির্বিশেষে সকলকে সেবা করা। অসহায়ের পাশে দাঁড়ানো। আর নবীর আদর্শকে সামনে রেখেই এই সেবার মাধ্যম দিয়েই ইসলামের প্রচার ও প্রসার করা।” তিনি আরও বলেন, “অনেক স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনই রয়েছে কিন্তু সকলের সাথে ‘আল-হারামাইন মুজাদ্দেদীয়া ওয়ালফেয়ারর ট্রাস্ট’-এর পার্থক্য এর কাজেই প্রমান করে দেবে। আত্ম প্রকাশের প্রথম দিনই যার আভাস দেখা গেছে।”

ট্রাস্টের প্রতিষ্ঠাতা সম্পাদক পীরজাদা সাহিম সিদ্দিকী বলেন, “স্বাধীনতা সংগ্রামী যুগসংস্কারক দাদা হুজুর পীরকেবলা(রহঃ) কর্মজীবনে দ্বীনের খেদমতের পাশাপাশি মানবসেবার উপরও বিশেষ গুরুত্ব দিয়েছিলেন। আমরা তাই তার রেখে যাওয়া কর্মপধ্যতি কে সামনে রেখে ট্রাস্টের কর্মকান্ডকে এগিয়ে নিয়ে যেতে চায়।” অগনিত মানুষের উপস্থিতিতে ক্বারী সাহেবের ক্বিরাত দিয়ে সূচিত হওয়া এই অনুষ্ঠানের শেষ লগ্ন পর্যন্ত মানুষের ভিড় ছিল চোখে পড়ার মত। অনুষ্ঠানের মূল আকর্ষণ ছিল স্বনামধন্য ক্বারী হেদায়তুল্লাহর সুমধুর সুরে কোরআন পাঠ।মাঝে মাঝে ইসলামী সংগীত এই অনুষ্ঠানের মাত্রাকে আরও বাড়িয়ে দিচ্ছিল। ট্রাস্টের পক্ষ থেকে শ্রোতাদের দুই জন, স্বেচ্ছাসেবক দের মধ্যে একজন ও ট্রাস্টের সদস্যদের মধ্যে একজনের জন্য লটারি পধ্যতির মাধম্যে ওমরাহ যাওয়ার সুযোগ করে দেওয়া হয়। শ্রোতাদের মধ্যে ওমরাহ জন্য নির্বাচিত সৌভাগ্যবান দুই জন হলেন আবুজার রহমান বিশ্বাস ও মোহাম্মদ আবদুল আজিজ। এবং স্বেচ্ছাসেবক দের মধ্যে রেজাউল ইসলাম পান ওমরাহ যাওয়ার সুযোগ। এবং ট্রাস্টের সহ-সম্পাদক পীরজাদা তামিম সিদ্দিকী ওমরাহ যাওয়ার জন্য নির্বাচিত হলেও তিনি সেই টাকাটা ট্রাস্টের উন্নতি কল্পে দান করেন। সর্বশেষ বিশ্বশান্তি ও মঙ্গল কামনা করে মহান স্রষ্টার কাছে দুয়া করেন সম্পাদক পীরজাদা সাহিম সিদ্দিকী।