দুর্গা পুজোয় সরকারি সাহায্য দেওয়ার ঘোষণাকে চ্যালেঞ্জ জানিয়ে হাইকোর্টে আবেদন

0

টিডিএন বাংলা ডেস্ক: সরকারি কোষাগার থেকে দুর্গা পুজো কমিটিগুলিকে চাঁদা দেওয়া সংবিধান বিরোধী। সরকার কোনও ধর্মীয় কাজে জনগণের দেওয়া করের টাকা বিলি করতে পারে না। মঙ্গলবার এই আবেদন নিয়ে হাইকোর্টের দৃষ্টি আকর্ষণ করেন আইনজীবী সামিম আহমেদ। সম্প্রতি রাজ্য সরকার ঘোষণা করেছে দুর্গা পুজো কমিটি গুলিকে ১০হাজার টাকা করে চাঁদা দেওয়া হবে। এর জন্য সরকারের খরচ হবে ২৮কোটি টাকা। রাজ্য সরকারের এই সিদ্ধান্তের কথাও কলকাতা হাইকোর্টের প্রধান বিচারপতি জ্যোতির্ময় ভট্টাচার্যের ডিভিসনে এদিন জানানো হয়। এনিয়ে জনস্বার্থে মামলা দায়ের করার আবেদনে অনুমতি দিয়েছে আদালত। বুধবার মামলাটি দায়ের হবে।

এর আগে রাজ্য সরকার ইমামভাতা দেবার কথা ঘোষণা করেছিল। রাজ্য সরকারের ইমামভাতা দেওয়ার বিষয়ে কলকাতা হাইকোর্ট তার নির্দেশে জানিয়েছিল, ইমামভাতা দেওয়ার সিদ্ধান্ত বেআইনি এবং নিয়ম বহির্ভূত। দুর্গা পুজো কমিটিগুলিকে সরকারি চাঁদা দেওয়ার বিষয়টিও সংবিধানের ১৪ এবং ১৫(১) ধারার পরিপন্থী। জনস্বার্থের এই মামলায় আদালতের হস্তক্ষেপ চেয়ে বলা হয়েছে, রাজ্য সরকার কখনও কোনও ধর্মের পৃষ্ঠপোষকতা করতে পারে না। এছাড়া দুর্গা পুজো কমিটিগুলিকে চাঁদা দেওয়ার বিজ্ঞপ্তি জারি হয়েছে রাজ্যপালের সম্মতি ছাড়াই, যা সরকার কখনও করতে পারে না। পুজা কমিটিগুলিকে সরকারি কোষাগার থেকে ২৮কোটি টাকা চাঁদা হিসাবে দেওয়া সংবিধানের ১৬৬ধারারও পরিপন্থী। ইমামভাতার ক্ষেত্রেও রাজ্য সরকারের নির্দেশিকা খারিজ করে আদালত বলেছিল ধর্মীয় প্রধানদের সরকারিঅর্থ দেওয়া বিধি বহির্ভূত এবং সংবিধান বিরোধী। একইভাবে দুর্গা পুজো কমিটিগুলির জন্য ১০হাজার টাকা সরকারি চাঁদা দেওয়ার সিদ্ধান্তের ওপর আদালতের হস্তক্ষেপ চাওয়া হয়েছে। সৌজন্যে-গণশক্তি