কলকাতায় এসে বাংলাদেশে জামায়াতকে বয়কট করার ডাক বিএনপি নেতার

0

টিডিএন বাংলা ডেস্ক: ঠিক যেন উল্টোপুরণ। কলকাতায় ভারত-বাংলাদেশ সংলাপে একশো আশি ডিগ্রি ঘুরে চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী আওয়ামী লীগকে বিএনপির আহ্বান,’আসুন আমরা সবাই মিলে জামায়াত কে বয়কট করি।’

গত রবিবার কলকাতার একাডেমি অফ ফাইন আর্টসে ইন্দো-বাংলাদেশ কালচারাল সেন্টার ও গ্লোবাল মাইনোরিটি ভয়েসের পক্ষ থেকে ভারত-বাংলাদেশ সংলাপের আয়োজন করা হয়। বিষয়ছিল,’সংখ্যালঘুর নিরাপত্তা ও গণত্রন্ত।’ বাংলাদেশের জাতীয় সংসদ নির্বাচনের আগে বিবদমান দুই যুযুধান রাজনৈতিক দলকে একমঞ্চকে এনে নিঃসন্দেহে কৃতিত্বের দাবি রাখেন উদ্যোক্তারা।

এদিনের সংলাপে সংখ্যালঘুদের উপর নির্যাতনের প্রশ্নে অতীত ও বর্তমানে জামাতকে বরাবরের মতই দায়ী করে বক্তব্য রাখেন আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ও সাংসদ খালিদ মাহমুদ চৈধুরী ও কৃষক লীগের নেতা এটিএম আনিসুর রহমান বুলবুল। তাঁরা বলেন, ‘জামাটের দোসর বিএনপি এই অপকর্মের উস্কানিদাতা।’

এই অভিযোগের জবাব দিতে গিয়ে, সুপ্রিমকোর্টের আইনজীবী তথা বিএনপি নেতা খন্দকার আহসান হাবিব বলেন,’দলনেত্রী খালেদা জিয়ার নির্দেশে আজকের এই সংলাপে অংশ নিতে এসেছি। ঢাকায় এটা সম্ভব হত না। কারণ-আওয়ামি লিগ খুন, গুমের রাজনীতি করেছে। জামাত নির্বাচনে কোনও বিষয় নয়। কারণ তাদের নিবন্ধন নেই। সারাদেশে তাদরর এক শতাংশ ভোটও নেই। জামাতকে বাংলাদেশের মানুষ চান না। আওয়ামি লিগ এখন আমাদের দোষ দিচ্ছে। কিন্ত একটা সময় তারাই জামাতের সঙ্গে ঘর করেছে। আমাদের আহ্বান আসুন সবকিছু নতুন করে শুরু করি। জামাতকে বয়কট করি।

অন্যদিকে বিএনপির ডা. কাজি মাজহারুল ইসলাম দোলনের প্রতিক্রিয়া,’সংখ্যালঘুদের ওপর অত্যাচারের সঠিক তদন্ত করলে দেখা যাবে আওয়ামি লিগের নেতারা রয়েছেন। তারাই নাসিরনগর, রামু সহ একাধিক ঘটনা ঘটিয়েছেন। এরপরও সংখ্যালঘুরা বোঝেন না। তারা নৌকায় করে বসে থাকেন। আমরা তাদের বন্ধু, তারা এটা বোঝেন না।’

এদিন বাংলাদেশের সংবিধানে ধর্ম নিরপেক্ষতা ফেরার প্রশ্নে আওয়ামি লিগের খালিদ মাহমুদ চৌধুরীর প্রতিক্রিয়া,’আমরা সংবিধানের ধর্মনিরপেক্ষতায় ফিরে যাবোই। এটা আমাদের নিরন্তন সংগ্রাম।’
(সৌজন্যে-যুগশঙ্খ পত্রিকা)