পেটের দায়ে ইঁটভাঁটায় শিশুরা, স্কুলছুট বৃদ্ধি পাচ্ছে মালদায়

0

নিজস্ব প্রতিনিধি, টিডিএন বাংলা, মালদা : ভারতবর্ষের পিছিয়ে পড়া জেলার মধ্যে অন্যতম মালদা। এই জেলায় প্রায় ৪০লক্ষ মানুষের বাস। প্রায় ৭০ শতাংশ মানুষের কৃষিনির্ভর গ্রামীণ জনবসতি রয়েছে এখানে। আর্থিকভাবে পিছিয়ে পড়ার কারনে শিশু শ্রমিকদের সংখ্যাও দিনদিন বৃদ্ধি পাচ্ছে জেলায়।

শিশু কিশোররা শৈশব হারিয়ে পেটের দায়ে ইঁটভাঁটায় ঝুঁকিপূর্ন কাজে নামতে বাধ্য হচ্ছে। ফলে দিনদিন বৃদ্ধি পাচ্ছে স্কুলছুটের সংখ্যা। এমনটাই অভিযোগ জেলার অধিকাংশ সমাজ সচেতন ব্যক্তিদের। ভাঁটার মালিকরা কম অর্থের বিনিময়ে শিশুদের দিয়ে ঝুঁকিপূর্ণ কাজ করাচ্ছে বলেও তাদের অভিযোগ। যা ভারতীয় দণ্ডবিধি অনুযায়ী অপরাধ বলে গণ্য। অথচ প্রশাসনের নাকের ডগাতেই চলছে এসব।


ভাঁটায় কর্মরত কালাম শেখ নামে এক শিশুর কথায়, আমরা গরিব মানুষ। স্কুলে গেলে তো আর পেট চলবে না!  সকালে উঠেই ভাবতে হয় দুপুরে কি খাবো। তাই আসতেই হয় এখানে। খুরশেদ শেখ নামে এক অভিভাবক শ্রমিক জানান, আমার আর্থিক অবস্থা  ভালো নেই বলে ছেলেটাকে মাঝে মাঝে  কাজে  নিয়ে যায়। কি আর করবো বলুন। শুধু ভোট দিয়েই তো আর পেট ভরবে না!

স্থানীয় বিদ্যালয়ের শিক্ষক রবিউল ইসলাম টিডিএন বাংলাকে বলেন, ছেলেমেয়েরা বিদ্যালয়ে না আসলে তাদেরকে কিভাবে পড়াবো আমরা? তাদের পরিবারের দায়িত্ব তো আর আমরা নিতে পারিনা। এটা দেখার দায়িত্ব সরকারের। জেলার কালিয়াচক, বৈষ্ণবনগর, মোথাবাড়ি, ইংলিশ বাজার প্রভৃতি এলাকায় রমরমিয়ে চলছে বাংলা ভাঁটার কাজ। আর তাতেই  যুক্ত রয়েছে অধিকাংশ স্কুল ছুটেরা। কবে এই অব্যবস্থার অবসান হবে সেদিকেই তাকিয়ে জেলাবাসী।