প্রতিশ্রুতি সত্ত্বেও আন-এডেড মাদ্রাসার অনুমোদনের বিষয়ে রাজ্য সরকারের হেলদোল নেই, অভিযোগ

0
দীর্ঘ দুই বছর ধরে মাদ্রাসাগুলির অনুমোদনের ফাইল নবান্নে সংখ্যালঘু উন্নয়ন ও মাদ্রাসা শিক্ষা দফতরে আটকে রয়েছে বলে অভিযোগ। দফতরের মন্ত্রী স্বয়ং মুখ্যমন্ত্রী, সেখানে দীর্ঘদিন ধরে মাদ্রাসাগুলি অনুমোদন না পাওয়ায় মুখ্যমন্ত্রীর সদিচ্ছা নিয়ে প্রশ্ন উঠছে সংখ্যালঘু বুদ্ধিজীবী মহলে। আন-এডেড মাদ্রাসা অনুমোদনের দাবী ও অন্যান্য দাবীতে দীর্ঘদিন ধরে লড়াই করছে সংশ্লিষ্ট শিক্ষক শিক্ষিকাদের সংগঠন ওয়েষ্টবেঙ্গল আন-এডেড মাদ্রাসা টিচার্স ওয়েলফেয়ার এস্যোসিয়েশন।
গত ২৮ শে ফেব্রুয়ারি তারা মিছিল করে মহাকরনের বিভাগীয় আধিকারিকের মাধ্যমে মুখ্যমন্ত্রীকে গন-ডেপুটেশন জমা দেয়। রাজ্য সরকারের বার্তা কি? কবে অনুমোদন মিলবে? তা নিয়ে এদিন সংগঠনের পক্ষ থেকে রাজ্য সভাপতি হেদায়েতুল্লাহ খান ও রাজ্য সম্পাদক সেখ সামসূল হুদা নবান্নে সংখ্যালঘু উন্নয়ন ও মাদ্রাসা শিক্ষা দফতরের যুগ্ন সচিব সাকিল আহমেদ এর কাছে সাক্ষাৎ করেন।
নবান্ন থেকে অর্থনৈতিক কারন ও আদালতে মামলার অজুহাত দেখালে সংগঠনের পক্ষ থেকে বলা হয়, আমরা পোষ্য চাই না, মুখ্যমন্ত্রী যে কোন শর্তে অনুমোদন দিক। আর যে মামলা চলছে তার প্রমানস্বরূপ কপি চাইলে তিনি এড়িয়ে যান। এমনটাই দাবি ওয়েষ্টবেঙ্গল আন-এডেড মাদ্রাসা টিচার্স ওয়েলফেয়ার এস্যোসিয়েশনের রাজ্য সভাপতি হেদায়েতুল্লাহ খানের। এদিকে দীর্ঘদিন ধরে অনুমোদন না পাওয়ায় ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছে গরীব-পিছিয়ে পড়া সংখ্যালঘু সমাজের ছেলেমেয়ে সহ হাজারো বেকার যুবক যুবতী। অপর দিকে প্রতিশ্রুতি পূরন না করায় ক্ষোভে ফুঁসছে গোটা সংখ্যালঘু সমাজ।
head_ads