দিনমজুর দীন ইসলাম মেয়েদের শিক্ষিতা করার স্বপ্ন দেখে চলেছেন

0

সফিকুল গাজী, টিডিএন বাংলা, উত্তর ২৪পরগনা: পাকা ইঁটের বাড়ি নেই। দরমা দেওয়া মাটির বাড়িতেই বাস। নেই বিদ্যুৎ।উপার্জন বলতে অন্যের জমিতে চাষ। এক কথায় দীনমজুর। তাতে দুবেলা পেটের ভাত জোটাতে হিমসিম অবস্থা। নুন আনতে পান্তা ফুরায় তবুও তিন তিনটি মেয়েকে লেখা পড়া শিখিয়ে মানুষ করার অদম্য ইচ্ছাকে কখনো দমতে দেননি মাটিয়া থানার পানিগোবড়া গ্রামের দীন ইসলাম।

নিজে নিরক্ষর হলেও বড় মেয়েকে মাধ্যমিক পাস করিয়েছেন। মেজো মেয়ে আল্পনা খাতুনকে  মাধ্যমিক পরীক্ষায় বসাতে চান। ঠিকমতো দুবেলা পেট পুরে না খেতে পাওয়া দীন ইসলাম টিডিএন বাংলাকে বলেন, আমার যত পরিশ্রম হোক তবু মেয়েদের শিক্ষিতা করে সমাজের এক জন করতে পারলেই আমার শান্তি। অষ্টম শ্রেণি পাশ মা নার্গিস বেগম বলেন, আমরা পারিনি কিন্তু মেয়েরা যাতে শিক্ষিত হয়ে সমাজে মাথা উঁচু করে বাঁচতে পারে তার চেষ্টা করবো। যত কষ্টই হোক।

একবিংশ শতকেও যখন নারীকে সইতে হয় অবমাননা, শিকার হতে হয় বাল্য বিবাহের। যখন মুখোশের আড়ালে চলে নারী সম্মান বাঁচানোর ভন্ডতা তখন দরিদ্র পরিবারের মা বাবার এই প্রয়াস সত্যি প্রশংসার দাবিদার। ১২ ই মার্চ থেকে পরীক্ষা শুরু আলপনার।

“শিবু কুঁইড়ির বিটির” মতো বেগমপুর বিবিপুর উচ্চমাধ্যমিক বিদ্যালয়ের আলপনাও মাধ্যমিকে প্রথম বিভাগে পাশ করার স্বপ্ন দেখে। আব্বু আম্মুর স্বপ্ন পূরণ করে তাদের মুখে হাসি ফোটাতে চায়। আলপনার সফলতার জন্য এখন দোয়া করছে গোটা গ্রামবাসী।