নিজস্ব সংবাদদাতা, টিডিএন বাংলা, ডোমকলঃ নার্সিং ট্রেনিং করিয়ে চাকরি দেওয়ার নামে টাকা নেওয়ার অভিযোগ উঠল ডোমকলের এক বেসরকারি নাসিং ট্রেনিং সেন্টারের বিরুদ্ধে। ক্ষুদ্ধ হয়ে রবিবার সন্ধ্যায় ডোমকল থানায় বিক্ষোভ দেখায় প্রতারিত পড়ুয়ারা। ঘটনায় উত্তেজনা ছড়ায় থানা চত্বরে।

জানা গিয়েছে, ভারত সরকার দ্বারা অনুমোদিত সেন্টার বলে পড়ুয়াদের কাছ থেকে ৭ হাজার, ১০ হাজার, ১২ হাজার এমনকি ২৫ হাজার করে টাকা নিয়ে তাদের চাকরির প্রতিশ্রুতি দেয় ডোমকল নার্সিং এন্ড প্যারামেডিক্যাল হেল্থ সেন্টার। ছাত্র-ছাত্রীদের ট্রেনিং শেষ হয়ে গেলেও মিলছে না সার্টিফিকেট। আজকাল করে ছাত্র-ছাত্রীদের ঘুরিয়ে যাচ্ছে সেন্টারটি। এমনকি ঘটনার পর থেকে সেন্টারের দায়িত্বপ্রাপ্ত আধিকারীকও পলাতক।

পড়ুয়াদের অভিযোগ, নার্সিং ট্রেনিং করিয়ে আমাদের চাকরির দেবো বলে ডোমকল নার্সিং এন্ড প্যারামেডিক্যাল হেল্থ সেন্টার। কোর্স শেষে ভারত সরকার দ্বারা অনুমোদিত সার্টিফিকেট দেবে বলে প্রতিশ্রুতি দেয়। এমনকি ১০০ শতাংশ চাকরির কথাও বলে। কিন্তু এখন সার্টিফিকেট দিচ্ছে না।

এক ছাত্র জানায়, ডোমকল থানায় লিখিত অভিযোগ করতে গেলে পুলিশ অভিযোগ নেয়নি। পাল্টা পুলিশ জানায় আমরা অভিযোগ করলে নার্সিং ট্রেনিং সেন্টার কর্তৃপক্ষও ছাত্র-ছাত্রীদের নামে অভিযোগ করবে। আমরা অভিযোগ করিনি।

প্রতারিত ছাত্র রাহুল মন্ডল বলছেন, ভারত সরকার দ্বারা অনুমোদিত বলেছে। পাশাপাশি বেহালার নামকরা সেন্টারে তত্বাবধানে আমাদেরটা সাব সেন্টার বলেও জানান স্যার। আমি বেহালার ওই সেন্টারে যোগাযোগ করলে তারা জানান, তাদের ওই রকম কোনো শাখা নেই। তারপরই আমাদের সন্দেহ হয়। আমারা সেন্টারের বৈধ্য কাগজ দেখতে চাইলে
তারা কোনো সদুত্তর দিতে পারেনি। ইলিয়াস স্যারেরকাছে জানতে চাইলে তিনি আমাদের এড়িয়ে গিয়েছেন।

ওই সেন্টারের এক শিক্ষক রবিউল সেখ জানান, আমি সেন্টারে যায় ছাত্র-ছাত্রীদের ট্রেনিং করিয়ে বেরিয়ে আসি। আমাদের মার্সিক বেতন ঠিকঠাক দেয় না। দু মাসের বেতনও আটকিয়ে রেখেছে। আমরা অনেক সময় সেন্টারের বৈধ্য কাগজ রয়েছে কিনা জানতে চাইলে আমাদের এড়িয়ে যায়। হঠাৎ করে আজ পড়ুয়ারাই জানতে পারে ওই সেন্টারের কোনো বৈধ্য কাগজ নেই৷ তারপরই তারা বিক্ষোভ দেখায়।