রামনবমীতে অস্ত্র মিছিলতো আগে হয়নি, মন্তব্য প্রাক্তন বিচারপতি অশোক গাঙ্গুলির

0
নিজস্ব সংবাদদাতা, টিডিএন বাংলা, কলকাতা : রামনবমীতে অস্ত্র মিছিলের বিরোধীতা করলেন হাইকোর্টের প্রাক্তন বিচারপতি অশোক গাঙ্গুলি। শনিবার কলকাতা প্রেস ক্লাবে ফোরাম ফর ডেমোক্রেসি এন্ড কমিউনিয়াল এমিটির আয়োজিত সাংবাদিক সম্মেলনে তিনি বলেন, “এই রাজ্যে ধর্মনিরপেক্ষ শক্তি দুর্বল হয়ে গেছে। রাজ্যে ধর্মনিরপেক্ষতার যে ঐতিহ্য তা বহু পুরাতন। মানুষ সজাগ থাকলে কিছু হবেনা। রামনবীতে অস্ত্র মিছিল হবে কেন? এইসবতো আগে ছিলোনা। মানুষ খেতে পাচ্ছে না,হিন্দু মুসলিম দুইজনেই শোষিত হচ্ছে। এই বিভেদটা তৈরি হচ্ছে কেন? রাম নবমীতে অস্ত্র মিছিল হলে সাধারণ মানুষ প্রতিবাদ করুক।”
অশোক গাঙ্গুলি এক প্রশ্নের জবাবে টিডিএন বাংলাকে বলেন, “ভারতবর্ষের ঐতিহ্য, পশ্চিমবঙ্গের ঐতিহ্যকে তুলে ধরতেই আমাদের এই উদ্যোগ। মিডিয়ার উপর সরকার নানা ভাবে চাপ তৈরি করছে,কিন্তু মানুষের যে দুঃখ সে সম্পর্কে আলোচনা হচ্ছে। ভারতবর্ষের কোটি কোটি লোক দুবেলা দুমুঠো খেতে পায়না অথচ কোটি কোটি টাকা দুর্নীতি হচ্ছে। সাধারণ মানুষের টাকা লুট হচ্ছে। কৃষক মারা যাচ্ছে। ফসলের নূন্যতম  দাম পাচ্ছে না। এমনটা ইংরেজ আমলেও ছিলোনা।
সরকারের বিরুদ্ধে কিছু লিখলেই নিগ্রহ করা হচ্ছে। সাংবাদিকদের ঐক্যবদ্ধ হবার দিন এসেছে। সরকার যা বলবে সেটা পরিবেশন করা ঠিক নয়। সত্য খবর,সত্য কথা মানুষকে জানানো হচ্ছে না। এমনটি চললে গণতন্ত্র দুর্বল হয়ে পড়বে।সরকারের কাজ নিয়ে সমালোচনা করা আমাদের সাংবাদিক অধিকার। মানুষ সরকার নিয়ে আলোচনা করবে, ভাববে, এটা গণতন্ত্রের একটা অংশ।”
সাংবাদিক সম্মেলনে জামায়াতে ইসলামী হিন্দের রাজ্য সভাপতি মুহাম্মদ নুরুদ্দিন বলেন,” এটা সেকুলার দেশ। এই দেশে হিন্দু মুসলিম সকলে পারস্পরিক সম্পর্ক যত ভালো হবে দেশ তত এগিয়ে যাবে।
আজ ভারতের সংবিধানের ওপর আঘাত করতেই আম্বেদকরের উপর আঘাত হানা হয়েছে। গণতন্ত্রকে শেষ করতে,সংবিধানকে চ্যালেঞ্জ জানাতে  আম্বেদকরের উপর আঘাত হানছে। একটা গণতান্ত্রিক সরকারের দায়িত্ত্ব জনগণের কথা শোনা, তাদের সমস্যার সমাধান করা। ভারতবর্ষের ধর্মনিরপেক্ষতা রক্ষা করতে আমাদের ভূমিকা নিতে হবে।”
এদিনের অনুষ্ঠানের আয়োজক কলকাতার আব্দুল আজিজ বলেন, “গণতন্ত্রের বৃহত্তম তিনটি অংশ আজ হুমকির মুখে। সুপ্রিমকোর্টের বিচারপতিরা আজ পথে নেমে কথা বলছেন। মিডিয়ার ভূমিকা ভালো নেই। মিডিয়া আজ নিরপেক্ষতা থেকে নিচে নেমে গেছে। আজ জাতি হুমকির মুখে,দেশ হুমকির মুখে।”