টিডিএন বাংলা ডেস্ক : একবার নয়, পরপর তিনবার ধর্ষিতা হয়েছিলেন তিনি।আর এক ধর্ষণের ঘটনার পর সাহায্যের মিথ্যে আশ্বাস দিয়ে তাঁকে আবারও ধর্ষণ করা হয়েছে। রবিবার বেহালার শিবরামপুরের নিজের বাড়িতে সাংবাদিক সম্মেলন ডেকে এমনই চাঞ্চল্যকর অভিযোগ করলেন নির্যাতিতা এই প্রাক্তন বিজেপি কর্মী। এদিন নজিরবিহীনভাবে পিছন ফিরে সাংবাদিক সম্মেলন করেন তিনি।



নির্যাতিতা জানান, তিনি সংঘের সঙ্গে যুক্ত ছিলেন ২০১৪ সাল থেকে। ২০১৬-র জুন মাসে তাঁকে কলকাতার একটি হোটেলে সংঘের জরুরি বৈঠকে ডাকা হয়। তারপর সেই হোটেলের একটি ঘরের ভিতর ঢুকিয়ে দরজা বন্ধ করে দিয়ে তাঁকে ধর্ষণ করেন সংঘের দুই নেতা। তারা হলেন, বিজেপির বর্তমান কেন্দ্রীয় সম্পাদক শিবপ্রকাশ এবং আরএসএসের বিদ্যুৎ মুখোপাধ্যায়। দরজা খোলা থাকায় কোনোক্রমে ঘর থেকে বেরিয়ে অমলেন্দুবাবুকে দেখতে পেয়ে ঘটনার সব কথা জানান নির্যাতিতা। তারপর তাকে মিথ্যা আশ্বাস দিয়ে তাঁর সঙ্গে অমলেন্দু বাবুও সহবাস করেছেন বলে অভিযোগ করেন তিনি। এমনকী তাঁর জমির নথি, পরিচয়পত্র-সহ একাধিক জিনিস অমলেন্দুবাবু নিজের কাছে আটকে রেখেছেন বলেও তাঁর অভিযোগ। এখন তিনি প্রাণ সংশয়ে রয়েছেন বলে এদিন জানান। যদিও এ নিয়ে সংঘের তরফে কোনও প্রতিক্রিয়া মেলেনি।



সম্প্রতি বেহালার মহিলা থানায় অমলেন্দু চট্টোপাধ্যাযের বিরুদ্ধে ধর্ষণ ও প্রতারণার অভিযোগ দায়ের করেন ওই নির্যাতিতা। বিজেপির প্রাক্তন সাধারণ সম্পাদক তথা আরএসএস নেতা অমলেন্দু চট্টোপাধ্যায়কে দিল্লির করোল বাগ থেকে গ্রেফতার করার পর শনিবার গভীর রাতে ট্রানজিট রিমান্ডে আনা হয় কলকাতায়। রবিবার অমলেন্দুবাবুকে আলিপুর আদালতে তোলা হলে বিচারক তাকে আগামী ২৭ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত পুলিশি হেফাজতের নির্দেশ দেন।

তথ্যসূত্র : যুগশঙ্খ