প্রধানমন্ত্রী থেকে শুরু করে বিজেপি সরকারের দায়িত্বপ্রাপ্ত সকলেই আরএসএসের লোক

0

নিজস্ব সংবাদদাতা, টিডিএন বাংলা, কলকাতা: প্রধানমন্ত্রী থেকে শুরু করে বিজেপি সরকারের দায়িত্বপ্রাপ্ত সকলেই আরএসএসের লোক।ঠিক এই ভাষাতেই কেন্দ্রীয় সরকারের সমালোচনা করলেন রাজ্যের প্রাক্তন মন্ত্রী ডঃ আব্দুস সাত্তার। তিনি বলেন,”সরকার ধর্মের ভিত্তিতে বিভাজনের রাস্তায় নেমেছে। আরএসএস তাদের দীর্ঘলালিত অ্যাজেন্ডাগুলো রূপায়নের চেষ্টা করছে। ইতিপূর্বে বিজেপি সরকার কেন্দ্রীয় সরকারে ক্ষমতায় এলেও সেসময় আরএসএসের নিজস্ব অ্যাজেন্ডা এভাবে রূপায়িত হতে দেখা যায়নি। বর্তমান সরকারের যারা দায়িত্বপ্রাপ্ত তারা সকলেই আরএসএসের লোক। এমনকী প্রধানমন্ত্রীর দফতরও আরএসএস দ্বারা চালিত হয়। কারণ, তিনি নিজেই একজন ‘স্বয়ংসেবক’। তার দলের সভাপতি স্বয়ংসেবক এবং মন্ত্রীসভার সদস্যদের প্রায় সকলেই স্বয়ংসেবক।’ খবর পার্সটুডের।
প্রাক্তন ওই মন্ত্রী আরও বলেন, ‘আমরা দেখলাম বিভাজন এক ভয়ঙ্কর পরিস্থিতিতে নিয়ে গেছে। শুধু দলিত বা মুসলিমরা নয়, দেখা যাচ্ছে সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশাবলি সেটাও পালিত হচ্ছে না! একটা ছায়াছবিকে কেন্দ্র করে যা ঘটছে তাতে বিভিন্ন রাজ্য সরকার নীরব। কাল্পনিক বিষয় ‘পদ্মাবত’ ছায়াছবিকে কেন্দ্র করে যা ঘটছে তা ভাবা যায় না! স্কুলের শিশুরা আক্রান্ত হচ্ছে, তাদের গাড়িগুলো আক্রান্ত হচ্ছে। ধর্মের নামে, বর্ণের নামে, কে কী খাবে, কে কী পরবে, শিল্পী, সাহিত্যিক কেউ আজ সুরক্ষিত নয়। কে কী লিখবে, কে কোন সিনেমা তৈরি করবে সবই তারা নির্দেশ করে দিচ্ছে। বৈচিত্রের মধ্যে ঐক্যের যে ভারত সে ভারত আর নেই।’  
কেন্দ্রের বিজেপি সরকারকে এক হাত নিয়ে অধ্যাপক ড. আব্দুস সাত্তারের মন্তব্য,’স্বাধীনতার ৭০ বছর ধরে যা আমরা অর্জন করেছিলাম, এই বিগত তিন বছরে সেগুলোকে তছনছ করে দেয়ার চেষ্টা হয়েছে। লক্ষ্য করলে দেখা যাবে তাদের অ্যাজেন্ডা যারা রূপায়ন করছে তারা বিভিন্ন  পুরস্কারে সম্মানিত হচ্ছে। প্রধানমন্ত্রী নিজেই বলেছেন, আজ সর্বস্তরে গণতন্ত্রে তাদের উপস্থিতি-এটা ঠিকই। কারণ,  রাষ্ট্রপতি তাদের, উপরাষ্ট্রপতি তাদের মনোনীত। প্রধানমন্ত্রী নিজেই আছেন। প্রায় বেশিরভাগ ক্ষেত্রে গভর্নররা তাদের মনোনীত। ফলে তাদের অ্যাজেন্ডাকে তারা রূপায়িত করতে চাচ্ছে।”
ওই প্রাক্তন মন্ত্রী অভিযোগ করে বলেন,”আজ মানুষের মৌলিক অধিকার আক্রান্ত। বাক স্বাধীনতা খর্ব করা হচ্ছে। করনি সেনা, বিভিন্ন সেনা, তিন-চার ধরণের সেনা, একটা সরকারি সেনা, আর একটা এই ধরণের সেনা। এভাবে কোথাও হয় কিনা জানি না। ব্যাচ লাগিয়ে, মাথায় টুপি পরে সর্বত্র তারা ঘুরে বেড়াচ্ছে। এরা কোন দেশ রক্ষা করছে কেউ জানে না। আমাদের দেশকে রক্ষা করার জন্য সেনাবাহিনী আছে, তারা আমাদের গর্বের জিনিস। সবসময় সেনাবাহিনীর পাশে আমরা দাড়াই। কিন্তু এ কোন সেনা? এরা কোন দেশ রক্ষা করছে?”

head_ads