মালদার মাধবনগরের যুবক অমিত ঘোষ। পরিবারে আর্থিক অনটন রয়েছে। সেই কারনে সপ্তম শ্রেনী পর্যন্ত পড়াশোনার পর পাঠ চুকাতে হয়েছে তাকে। এরপর সে ইলেকট্রিক মিস্ত্রির কাজ করে। ২১বছর বয়সে তার সামনে তার এক বান্ধবীকে প্রকাশ্যেই হেনস্থা করে কিছু বখাটে যুবক।  সেই সময়ের বাস্তব পরিস্থিতিতে তাকে রক্ষা করতে পারেনি সে। এরপর থেকেই সে নারীদের সেলফ সুরক্ষার কি ভাবে করা যায় সেই নিয়ে শুরু করে চিন্তা ভাবনা।১৩ বছর পর তার পরিকল্পনা বাস্তব রূপ পায়। তৈরি করা হয় সেলফ সুরক্ষা গ্লাভস। দেড় বছরের প্রচেষ্টায় ইলেকট্রিক গ্লাভস তৈরী করে সে।  এই গ্লাভস দিয়ে কাউকে আঘাত নয় চেপে ধরলেই কুপোকাত হবে দুস্কৃতি বা বখাটেরা। এই খবর ছড়িয়ে পড়তেই তাকে সবার প্রথমে সাধুবাদ জানিয়েছেন এলাকার মহিলারা। বর্তমানে ইলেকট্রিক গ্লাভস তৈরী করতে খরচ হয়েছে ৫০০টাকা। খুব কম খরচে নারী সুরক্ষা কবজ হাতের মুঠোয়। তবে তা বেশী পরিমানে এবং উন্নত ধরনের তৈরী করলে সরকারী সাহায্য পেলে হয়তো ভবিষ্যতে এগিয়ে যাবে।

এই খবর প্রকাশ্যে আসতেই মহিলা থেকে যুবতীরা তাকে ধন্যবাদ জানান। মল্লিকা স্বর্ণকার নামে এক কলেজ ছাত্রী জানান, শ্লীলতাহানী ধর্ষন হেনস্থার ঘটনায় আমরা আতঙ্কিত। সেই কারনে ঘরের বাইরে বের হলেই চিন্তায় থাকে বাবা মা। সেই দিক থেকে এই গ্লাভস কাছে থাকলে তাতে আমরা অনেকটা সুরক্ষিত। আরও বেশী উন্নত হোক এই প্রচেষ্টা।