মুর্শিদাবাদের মর্মান্তিক দূর্ঘটনায় স্বজন হারিয়ে শোকাহত করিমপুর বাসি

0

মিলটন মণ্ডল, টিডিএন বাংলা, করিমপুর : মুর্শিদাবাদের সঙ্গে সঙ্গে নদীয়াতেও আছড়ে পড়ছে  হাহাকার, আর কান্নার রোল। দৌলতাবাদের মর্মান্তিক দুর্ঘটনায় গত কালকের পর নদীয়ার করিমপুরের  আরও দু’জন মৃতকে আজ সনাক্ত করেছে দুই  পরিবার। দুজনেই করিমপুরের আনন্দপল্লীর বাসিন্দা, বিভূতিভূষণ কর্মকার ও শিক্ষিকা জয়শ্রী চক্রবর্তী।


বিভূতিভূষণ বাবু পেশায় স্বর্ণ ব্যবসায়ী ছিলেন। ব্যবসার কাজেই সেদিন বাড়ি থেকে বহরমপুরের উদ্দেশ্যে চড়ে বসে ছিলেন সর্বনাশা বাসটিতে। গন্তবস্থলে পৌঁছানোর আগেই প্রাণ চলে গেল স্বর্ণ ব্যসায়ীর। স্বর্ণের কাজ শিখতে সদ্যশুরু করে ছিলেন বড় ছেলে  বিজয়ভূষণ কর্মকার। বাবার সঙ্গে আর সে কাজ শেখা হলো না।


ছোট ছেলে বিনয়ভূষণ কর্মকার টিডিএন বাংলাকে জানান, আমরা ঘটনাটি জানতে পেরেছি পৌনে ছয়টার সময়। সঙ্গে সঙ্গে বাবাকে ফোন করে কোনো উত্তর পায়নি। বাবা পরিবারের একমাত্র আয়ের উৎস ছিলেন। দাদা, কিছুদিন থেকে বাবার সঙ্গে কাজ শিখছিল, সেটা আর হলো না। আমিও গ্রাজুয়েশন সম্পন্ন করলাম, বাবা চলে গেলেন।