সামাউল্লাহ মল্লিক, টিডিএন বাংলা, সাঁকরাইল : উত্তর দিনাজপুর জেলার ইসলামপুরের দাঁড়িভিট উচ্চবিদ্যালয়ে দুজন নিহত হওয়ার প্রতিবাদে আজ ৬ ঘণ্টার বাংলা বনধের ডাক দিয়েছে রাজ্য বিজেপি। রাজ্যে ‘আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতির অবনতি এবং পুলিশের অত্যাচার বন্ধ ও দোষী পুলিশের শাস্তির’ দাবিতে এই বনধ ডাকা হয়েছে। যদিও সকাল থেকেই শহরতলি কলকাতা ও বিভিন্ন জেলাগুলিতে গাড়ি চলাচল প্রায় স্বাভাবিক রয়েছে।

অন্যান্য সমস্ত যাত্রীবাহী গাড়ি চলাচল করলেও হাওড়া জেলার ফেরিঘাটগুলির অধিকাংশ খেয়াই বাতিল করেছে। কোনও কোনও জায়গায় আধ ঘন্টার ব্যাবধানে চলা খেয়াগুলি এক ঘন্টা বা দেড় ঘন্টার ব্যবধানে চালানো হচ্ছে। যার ফলে হাওড়া জেলা থেকে নদী পেরিয়ে কলকাতা যাওয়া যাত্রীরা সমস্যায় পড়েছেন। একই অবস্থা সাঁকরাইল অঞ্চলের হিরাপুর খেয়াঘাটেরও। এখানেও অধিকাংশ খেয়া বাতিল করা হয়েছে। ফলে ঘন্টার পর ঘন্টা অপেক্ষা করতে হচ্ছে যাত্রীদের।

এদিকে রাজ্য সরকারও এই বনধ প্রতিহত করার জন্য সার্বিক ব্যবস্থা গ্রহণ করেছে। তৃণমূল এই বনধ প্রতিহত করার জন্য জায়গায় জায়গায় পথে নামছে। পাল্টা বিজেপিও ঘোষণা দিয়েছে, তারা এ বনধ সফল করার জন্য সার্বিক ব্যবস্থা নেবে।

এদিকে রাজ্য সরকারের তরফ থেকে ঘোষণা দেওয়া হয়েছে, কোনো সরকারি কর্মচারী বনধের দিন অনুপস্থিত থাকলে তাঁর এক দিনের বেতন কেটে নেওয়া হবে। পাশাপাশি তাঁর চাকরিজীবনের একটি দিন কমে যাবে।

এ ছাড়া বনধের দিনে কোনো গাড়ির ক্ষতি হলে রাজ্য সরকার তার ক্ষতিপূরণ দেবে। গাড়ির অত্যধিক ক্ষতি হলে সর্বাধিক ৬ লাখ টাকা পর্যন্ত ক্ষতিপূরণ দেওয়া হবে। বিভিন্ন বিমা সংস্থার কর্মকর্তাদের সঙ্গে কথা বলে এই ঘোষণা দিয়েছে রাজ্য সরকার। গতকাল এ কথা জানিয়েছেন রাজ্যের পরিবহনমন্ত্রী শুভেন্দু অধিকারী। তিনি আরও বলেছেন, কাল গোটা রাজ্যে আরও বেশি করে সরকারি বাস, ট্রাম নামানো হবে। প্রতিদিনের মতো সব পরিবহন নিশ্চিন্তে নামানোর জন্য তিনি সবার প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন।