ছেলে নেই, ঈদের নামাজে শান্তির বার্তা দিলেন আসানসোলের ইমাম ইমদাদুল্লাহ রশিদী

0

সামাউল্লাহ মল্লিক, টিডিএন বাংলা, আসানসোল : রামনবমীর মিছিলকে ঘিরে উত্তপ্ত হয়ে ওঠা আসানসোলে এখন স্বাভাবিক পরিস্থিতিতে ফিরে এসেছে। সম্প্রতি আসানসোলের নামটা ধারাবাহিকভাবে থেকেছে খবরের শিরোণামে। আর উত্তপ্ত আসানসোলে সম্প্রীতির ঠান্ডা জল ছিটিয়ে দেওয়া ইমাম ইমদাদুল্লা রশীদি যেন হয়ে উঠেছিলেন মানবিকতার এক অনন্য উদাহরণ।

শান্তির বার্তা দিয়ে বিশ্বজুড়ে আলোড়ন সৃষ্টিকারী এই ইমামের এইবারের ঈদ কেমন কাটছে? ছোট ছেলেকে বাদ দিয়ে ঈদ এই প্রথম। জবাবে ইমাম রশিদী টিডিএন বাংলাকে বলেন, ‘খুশীর ঈদ। সবাই খুশী আমিও খুশী। সবাই নিজের পরিবার নিয়ে খুশীতে ঈদ পালন করছেন। আমি সন্তানহারা হইনি। এক সন্তানের বদলে হাজার হাজার মানুষ আজ আমার সন্তান। তাঁরা আজ আমাকে বুক উজাড় করে ভালোবাসা দিয়েছে।’

তবুও বাড়ির লোকের অবস্থা কেমন? পাল্টা প্রশ্নে একটু বুঝি কষ্টই পেলেন ইমাম। বললেন, ‘সেই কষ্ট যার সেই বুঝবে শুধু। সবাই ভালো থাকুন, ঈদ মুবারক।’ এদিন সকাল ৮টায় ঈদের নামাজ পড়ান ঈমাম রশিদী। তারপর মসজিদে বসে সবার সঙ্গে ইসলাম নিয়ে আলোচনায় বসে যান। এলাকাবাসীর কথায়, ইমাম সাহেব ধৈর্য্যের এক মূর্ত প্রতীক।

উল্লেখ্য, ওই ইমামের ছোট ছেলে রামনবমীর সময় নিখোঁজ হয়ে যায়৷ স্থানীয়দের দাবি, রামনবমী ঘিরে যখন উত্তেজনা ছড়িয়েছিল, সেই সময়ই ছেলেটি নিখোঁজ হয়৷ তার পর তার মৃতদেহ উদ্ধার হয়৷ কিন্তু এর জেরে যাতে এলাকায় নতুন করে উত্তেজনা না ছড়ায়, সেই বিষয়ে প্রথমেই এগিয়ে এসেছিলেন ওই ইমাম ইমাদাদুল্লা রশীদি৷ আসানসোলের ইমাম তিনি হিংসা থামিয়েছেন৷ কারণ, তিনি মনে করেন, তাঁর ছেলের আয়ু যতদিন ছিল, ততদিন সে বেঁচেছে৷ তাই তিনি চেয়েছিলেন, এলাকায় সম্প্রীতি থাকুক৷