পার্শ্বশিক্ষকদের বর্ধিত ভাতা ঘোষণার আড়াই মাস পরেও জারি হয়নি বিজ্ঞপ্তি, প্রধানমন্ত্রীর কাছে ‘পত্র ভরো’ কর্মসূচি

0

নিজস্ব প্রতিনিধি, টিডিএন বাংলা, কলকাতা: পশ্চিমবঙ্গে সর্বশিক্ষা মিশনে নিযুক্ত পার্শ্বশিক্ষকদের রাজ্যসরকার কর্তৃক আর্থিক শোষণ-বঞ্চনার প্রতিবাদে ও কেন্দ্রীয় হারে বেতনের দাবীতে সারা রাজ্য ব্যাপী পার্শ্বশিক্ষক ঐক্যমঞ্চের ডাকে প্রধানমমন্ত্রীর নিকট পত্র প্রেরণ অভিযান চলছে।

চলতি বছরের ৯ই মার্চ দলের কোর কমিটির বৈঠকে মুখ্যমন্ত্রী ঘোষণা করেছিলেন প্রাইমারি ও আপার প্রাইমারি পার্শ্বশিক্ষকদের ভাতা বৃদ্ধি করে যথাক্রমে দশ ও তেরো হাজার করা হবে। যদিও এদিকে ঘোষণার দুই মাস পেরুলেও সরকারিভাবে বেতন বৃদ্ধি সংক্রান্ত কোন বিজ্ঞপ্তি জারি করা হয়নি। এদিকে সোমবার সিভিক, আশা ও আইসিডিএস কর্মীদের ভাতা বাড়ানোর ঘোষণা করেন মুখ্যমন্ত্রী যা আগামী ১অক্টোবর থেকে কার্যকর হবে বলেও জানান তিনি। পার্শ্বশিক্ষকদের পক্ষে সেই সময় সাময়িক ঐ ঘোষণায় মানসিক স্বস্তি দিলেও দিন দিন আরো হতাশ হয়ে পড়ছেন তারা। এই অবস্থায় আবারো আন্দোলনে নামছে তারা। সংগঠনের পক্ষ থেকে প্রধান মন্ত্রীর কাছে পঞ্চাশ হাজার চিঠি পাঠানো উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।

তবে কি মুখ্যমন্ত্রীর ঘোষণা শুধু নির্বাচনী চমকই ছিল? ভোট পেরুলেও আজও অব্দি কোন জিও কেন বের করলোনা সরকার? প্রশ্ন তুলেছে বঞ্চিত পার্শ্ব শিক্ষকরা। ২০১৩র পঞ্চায়েতের আগেও তিনি পার্শ্ব শিক্ষকদের বেতন বৃদ্ধির কথা ঘোষণা করেছিলেন, ২০১৮তেও করলেন। কিন্তু বাস্তবে এক পয়সাও বাড়েনি অভিযোগ বঞ্চিত পার্শ্ব শিক্ষকদের।

রাজ্য পার্শ্ব শিক্ষক ঐক্য মঞ্চের আহ্বায়ক ভগীরথ ঘোষ টিডিএন বাংলাকে বলেন, দীর্ঘ আট বছর পর বাজার দর অনুযায়ী ১০হাজার বা ১৩ হাজার কোন সুরাহা নয়, তবুও মুখ্যমন্ত্রীর ঘোষণায় একটু স্বস্তির আভাস পেয়েছিলাম আমরা। ভোট পেরুলেও বর্ধিত ভাতার আজ অব্দি কোন জিও না বের হওয়ায় আমরা মর্মাহত। এই বঞ্চনার প্রতিবাদে প্রধান মন্ত্রীর কাছে আমাদের যন্ত্রণার কথা তুলে ধরতে “পত্র ভরো” কর্মসুচী নিয়েছি।

ভারতবর্ষে একমাত্র পশ্চিমবঙ্গে সর্বশিক্ষা মিশনে নিযুক্ত পার্শ্বশিক্ষকরা সব চাইতে কম বেতন পেয়ে থাকেন। বিগত সাত বছরে একটি টাকাও বেতন বৃদ্ধি করেনি বর্তমান সরকার। এদিকে রাজ্যের প্রায় ৪৮ হাজার পার্শ্বশিক্ষক ১১ থেকে ১৪ বছর ধরে রাজ্যের বিদ্যালয়গুলিতে কাজ করে চলেছেন। অর্থাভাবে বিনা চিকিৎসায় ও দেনার দায়ে বিগত দুই বছরে প্রায় ৬৩ জন পার্শ্বশিক্ষক মারা গেছেন বা আত্ম্যহত্যা করতে বাধ্য হয়েছেন বলে তাদের দাবি। অন্যান্য রাজ্যে যেখানে সর্বশিক্ষায় নিযুক্ত পার্শ্বশিক্ষকরা ২৫ হাজারের উপর বেতন বা সমকাজে সম বেতন পাচ্ছেন সেখানে আজীবনের জন্য নি্যুক্ত (৬০ বৎসর বয়স পর্যন্ত কাজের মেয়াদ) এই রাজ্যের প্রাথমিক ও উচ্চপ্রাথমিকের পার্শ্বশিক্ষকরা যথাক্রমে ৫৯৫৪ ও ৮১৮৬ টাকা ভাতা পান।

ছত্রিশগড়ে প্রাথমিক ও উচ্চ প্রাথমিকের পার্শ্ব শিক্ষকরা বেতন পান যথাক্রমে ১৫,০০০ ও ২৩,০০০ টাকা। অরুণাচল প্রদেশে ২১,১৭৫ ও ২৬,৫৪৩ টাকা। একই দেশে একই সর্বশিক্ষার আওতায় নিয়োগ প্রাপ্তদের রাজ্য ভেদে এই বৈষম্য নিয়ে অনেক দিন থেকেই সরব এরাজ্যের পার্শ্ব শিক্ষকরা। সারা বাংলা পার্শ্ব শিক্ষকদের সম্মিলিত মঞ্চ পার্শ্ব শিক্ষক ঐক্য মঞ্চের ঘোষণা অনুযায়ী সারা বাংলার পার্শ্ব শিক্ষকরা প্রধান মন্ত্রীর কাছে “পত্র ভরো” কর্মসুচী গ্রহণ করেছে। প্রধাণ মন্ত্রীর কাছে তাদের যন্ত্রণার কথা জানিয়ে চিঠি পাঠাচ্ছেন তারা।