জামায়াতে ইসলামীর কলকাতা নেতার চিঠির জবাবে রবিশঙ্কর বললেন, আমি মুসলিমদের ভালোবাসি

0

নিজস্ব সংবাদদাতা, টিডিএন বাংলা, কলকাতা: বাবরি ইস্যুতে শ্রী শ্রী রবি শঙ্করের মন্তব্যের সমালোচনা করে কলকাতার জামায়াতে ইসলামী হিন্দের নেতা আব্দুল আজিজ চিঠি দিয়েছিলেন। মূলত মিল্লি ইত্তেহাদ পরিষদ ও মজলিসে মুসওয়ারাতের হয়ে চিঠি দেন ওই নেতা। জামায়াতে ইসলামী হিন্দের রাজ্য কমিটির সদস্য আব্দুল আজিজের চিঠির জবাবে রবিশঙ্কর জানিয়েছেন, তিনি মুসলিম বিরোধী নন।
বেশ কিছুদিন আগে হিন্দু ধর্মগুরু শ্রী শ্রী রবিশঙ্করের মন্তব্য ঘিরে বিতর্ক তৈরি হয়েছিল দেশে। আর্ট অফ লিভিংয়ের ওই লেখক বলেছিলেন,অনতিবিলম্বে রামমন্দির সমস্যা না মিটলে আমরা দেখব,ভারতে সিরিয়ার মতো পরিস্থিতি তৈরি হয়েছে। এই বিতর্কিত মন্তব্যের পর আব্দুল আজিজ গুরুজীকে চিঠি দিয়ে বেশকিছু প্রশ্ন করেন। ভারতের প্রভাবশালী ওই হিন্দু ধর্মগুরুর পক্ষ থেকে চিঠির জবাব দেওয়া হয়েছে। সেই চিঠি টিডিএন বাংলার হাতে এসেছে।
জামায়াতে ইসলামীর সদস্য জানতে চেয়েছিলেন, গুরুজীর মন্তব্যের ফলে সুপ্রিমকোর্টকে অপমান করা হয়েছে কিনা বা রায়কে প্রভাবিত করার চেষ্টা কিনা। জবাবে শ্রী শ্রী রবিশঙ্কর জানিয়েছেন,”
মহামান্য সর্বোচ্চ আদালত সমস্যাটাকে যেহেতু আদালতের বাইরে মীমাংসা করে নিতে বলেছেন সেক্ষেত্রে আমরা কোর্টের নির্দেশকে প্রতি অক্ষরে অক্ষরে আন্তরিকতার সঙ্গে অনুসরণ করছি।”
মিল্লি ইত্তেহাদের ওই নেতা আরও জানতে চান যে,রবিশঙ্করের মন্তব্য সংখ্যাগুরুদের অপমান কিনা? গুরুজী জানিয়েছেন,” কোনো ভাবেই না । এটা বলা সবথেকে হাস্যকর হবে । আর্ট অব লিভিং কঠোর প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে শিয়া-সুন্নি একতার লক্ষ্যে, উত্তর-পূর্ব ভারতের মিলিটান্সদের কে সমাজের মূল স্রোতে ফিরিয়ে আনার এবং বিশ্বব্যাপি শান্তির জন্য তদ্রুপ প্রয়াস চালিয়ে যাচ্ছে ।
যারা রবিশঙ্করের  মধ্য দিয়ে ভাবেন দেশের এমন নাগরিকের বৌদ্ধিক ভাবনাকে অবমাননা করা হয়নি বলেও হিন্দু গুরু জানিয়েছেন। তাঁর জবাবি মন্তব্য,”কোনোভাবেই নয় । অল ইন্ডিয়া মুসলিম পার্সোনাল ল্ বোর্ড কে আমার দেওয়া চিঠিতে স্পষ্টরুপে উল্লেখ আছে যে এখানে নতিস্বীকারের কোন প্রশ্নই নেই। আমরা শুধু চাই দুই সম্প্রদায়কে একত্রিত করতে।”
আব্দুল আজিজের ছয়টি  প্রশ্ন ছিল। সব প্রশ্নের জবাব তিনি দিয়েছেন। মিল্লি ইত্তেহাদ পরিষদ ও মজলিসে মুসওয়ারাতের রাজ্য সম্পাদক জানতে চান,গুরুজী কি মুসলিম সম্প্রদায়কে হুমকি দিচ্ছেন না তাঁর ইচ্ছার কাছে তাদেরকে  আত্মসমর্পণ করতে বলে অন্যথায় তিনি এই সম্প্রদায়কে ভয়াবহ রক্তপাতের সম্মুখিন হতে হবে বলছেন।
শ্রী শ্রী রবিশঙ্কর এই প্রশ্নের উত্তরও দিয়েছেন। তাঁর মন্তব্য “আমরা কেবলমাত্র ভ্রাতৃত্ব ও বন্ধুত্বকে এগিয়ে নিয়ে যেতে চাই এবং এই বন্ধনকে আগের থেকে আরো দৃঢ করতে চাই । এটা সম্পূর্ণরুপে আমাদের কথা ও কাজের সঙ্গে অসঙ্গতিপূর্ণ এবং পরস্পর বিরোধী।”
রবিশঙ্কর আরও বলেন,”এটা শুনতে খুবি অপ্রিতীকর যে আমি মুসলিম বিরোধী । তাহলে আর্ট অফ লিভিং এর কি প্রয়োজন ছিলো বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্তে সঙ্ঘর্ষপূর্ণ এলাকায় যাওয়ার এবং কাজ করার । আমি সবসময় মানবতার মঙ্গলের এবং অভিন্নতার কথা বলে থাকি । আমার সাক্ষাৎকারগুলিতে আদালতের সম্ভাব্য ফলাফল কি হতে পারে সে সম্পর্কে আমাদের ভাবনাচিন্তাকেই আমি তুলে ধরেছি । আদালতের রায়ের মধ্য দিয়ে এক পক্ষ জয়ী হবে আর একপক্ষ পরাজিত হবে আর সেক্ষেত্রে যেপক্ষই পরাজিত হবে তারা আহত বোধ করবে । আমরা তা এড়াতে চাইছি  এবং এটা নিশ্চিত করতে চাইছি যে কোন পক্ষই যেন না হারে বরং উভয় সম্প্রদায়ের জন্য একটা জয়-জয় এর পরিস্থিতি হয় । কিন্তু সে প্রয়াসকে বিকৃত করা হয়েছে এবং কেন এভাবে এইসব বিকৃতি করা হল এসবে কোনো মানে হয় না ।”
রবিশঙ্করের চিঠির জবাব সম্পর্কে বলতে গিয়ে আব্দুল আজিজ টিডিএন বাংলাকে জানান,”আমি চিঠি দিয়েছি মিলনের জন্য। ভারতের বৈচিত্রকে নষ্ট করে এমন কোনও মন্তব্য করা উচিৎ হবেনা আমাদের। আমরা চাই,নিজেদের সমস্যাগুলিকে আলোচনার মাধ্যমে সমাধান করতে।”

head_ads