মুর্শিদাবাদে দ্রুত বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার দাবিতে জোরালো আওয়াজ ডোমকলে 

0

কিবরিয়া আনসারী  ও হামিম হোসেন মন্ডল, টিডিএন বাংলা, মুর্শিদাবাদ: মুর্শিদাবাদে দ্রুত বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার দাবিতে জোরালো আওয়াজ তুললেন বিশিষ্ট জনেরা। রবিবার ডোমকল শাখার মুর্শিদাবাদ বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠা মঞ্চ জোরালো আওয়াজ তোলেন। পথসভার করে ডোমকল ল কলেজের হল ঘরে এই সভার কাজ শুরু হয়। শুধু ঘোষনা নয় দ্রুত বিশ্ববিদ্যালয় তৈরীর দাবিও তোলেন তারা। মুর্শিদাবাদ বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠা মঞ্চ প্রস্তাব রাখেন নবাব সিরাজ উদ দৌলার নামে বিশ্ববিদ্যালয় করার।


পিছিয়ে রাখা নয়, বঞ্চিত রাখা নয় মুর্শিদাবাদ জেলায় চাই একটি পূর্ণাঙ্গ সরকারি বিশ্ববিদ্যালয়। এই শ্লোগান কে সামনে রেখেই দ্রুত বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার দাবিতে জোর আওয়াজ তুললেন মুর্শিদাবাদ বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠা মঞ্চ।

সংগঠনের সম্পাদক আব্দুল হামিদ সরকার বক্তব্য দিতে গিয়ে বলেন, বিশ্ববিদ্যালয় তৈরীর জন্য পথে নেমেছি।  শাসক শ্রেনীর লোকেদের সাহায্য চাইলেও পায়নি। বরং তারা আমাদের পাশ থেকে সরে গিয়েছে।


বিশিষ্ট শিক্ষক শিব শংকর পাল কটাক্ষ করে বলেন, এতো এতো বিশ্ববিদ্যালয় থাকলেও মুর্শিদাবাদে কেনো নয়। এই জেলায় উচ্চ শিক্ষার ব্যবস্থা না থাকায় অনেকেই বিদেশ পাড়ি দিচ্ছে। বিদেশে গিয়ে পড়ার সামর্থ না থাকায় কাজের সন্ধানে বিদেশ যাচ্ছে যুবকরা। শুধু ঘোষনা করলেই হবে না। দ্রুত বিশ্ববিদ্যালয় তৈরীর কাজ শুরু করতে হবে বলে জানান তিনি।

মুর্শিদাবাদ বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠা মঞ্চের জেলা কমিটির সদস্য মতিউর রহমান বক্তব্য দিতে গিয়ে বলেন, প্রথম ধাপের জয় মুর্শিদাবাদের।মুর্শিদাবাদে বিশ্ববিদ্যালয় ঘোষনা হয়েছে এটা এমনি এমনি হয়নি। আমরা এবং বিভিন্ন সংগঠনের দাবিতে এই ঘোষনা হয়েছে। এতদিন কোনো রাজনৈতিক নেতা কেনো শোচ্চার হয়নি। যারা বিশ্ববিদ্যালয়ের জন্য রাস্তাই নেমেছে তাদের সাধুবাদ জানাই।

উপন্যাসিক সিরাজুল ইসলাম এর বক্তব্যে উঠে আসে মুর্শিদাবাদ জেলা কে পিছিয়ে রাখার কথা। সংখ্যালঘু জেলা বলেই পিছিয়ে রাখা হয়েছে মুর্শিদাবাদ কে। এই জেলার মানুষ কে মাথা উঁচু করে বাঁচতে দেবে না বর্তমান সরকার। তাই এই বঞ্চনা বলে আমি মনে করি। তবে দীর্ঘ আন্দোলনের পর বিশ্ববিদ্যালয় ঘোষনা হয়েছে তার জন্য ধন্যবাদ জানাই শিক্ষা মন্ত্রী কে।


প্রাক্তন অধ্যক্ষ ড. সনৎ কর বক্তব্যের মাঝে প্রশ্ন করে বলেন, কোথায় হবে বিশ্ববিদ্যালয়? কি নাম হবে বিশ্ববিদ্যালয়ের? ঘোষনা হয়েছে কিন্তু এখনও আইন পাস হয়নি। আমাদের কাজও শেষ হয়নি। যতদিন না বিশ্ববিদ্যালয় তৈরী হয়ে পঠন পাঠন শুরু হচ্ছে ততদিন আমাদের সংগঠনের কাজ চলবে।

বিশিষ্ট সাংবাদিক বিপ্লব বিশ্বাস এর কথায়, আমরা নানাভাবে বঞ্চিত, নিপীড়িত, অবহেলিত হয়েছি। সবার আগে ছিল মুর্শিদাবাদ। কিন্তু সেই মুর্শিদাবাদ আজ সবার পরে। পাশের জেলাই তিনটি বিশ্ববিদ্যালয়।


সংগঠনের সভাপতি ড. মজিবুর রহমান বলেন, কোথায় হবে? কি নাম হবে? তা রাজ্য সরকার ভাববে। তবে আমরা প্রস্তাব রাখব নবাব সিরাজ উদ দৌলার নামে বিশ্ববিদ্যালয় করতে। বিশ্ববিদ্যালয় তৈরীর ঘোষনা হয়েছে তাতে আমরা আনন্দিত। যতদিন না বিশ্ববিদ্যালয় তৈরী হচ্ছে ততদিন আমাদের সংগঠনের কাজ চলবে