মিরাজুল মল্লিক, টিডিএন বাংলা, হুগলী: এলাকার এক স্থানীয় তৃণমূল নেতাকে পুলিশের জুতোপেটা ঘিরে এলাকায় উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে। এর জেরে বেশ কয়েক ঘণ্টা অবরোধ করা হয় আরামবাগ- বদনগঞ্জ রোড, বিক্ষোভ  দেখানো হয় বদনগঞ্জ বিট হাউস ঘেরাও করে। পরে পুলিশের আশ্বাসে এই অবরোধ ও ঘেরাও তোলা হয়।

জানা গিয়েছে, পুকুর পাড়ে নতুন ভবন তৈরি করাকে কেন্দ্র করে উত্তপ্ত হয়ে উঠে গোঘাটের বদন গঞ্জ এলাকা। এলাকার বাসিন্দা সুভাষ  লাগা ও জয়দেব কর পুকুর পাড়ে নিজেদের অংশে বাড়ি তৈরি করছিলেন।উক্ত স্থানে স্থানীয় অপর এক  বাসিন্দা মৃত্যুঞ্জয় পাল   আপত্তি জানিয়ে ১৪৪ ধারা জারি করেন। তাতে বাড়ি তৈরি করা বন্ধ রাখেন।এর পরেই স্থানীয় বিধায়ক মানস মজুমদার বিষয় টি ক্ষতিয়ে দেখেন । তারপর তিনি সুভাষ  ও  জয়দেব কে বাড়ির কাজ করতে বলেন।এদিকে সেই মত শুক্রবার সকাল থেকে তারা মিস্ত্রি নিয়ে কাজ শুরু করেন।

এদিকে বদনগঞ্জ বিট হাউসের দায়িত্বে থাকা এক এএসআই  সুভাস ও জয়দেব কে ডেকে পাঠায়। অভিযোগ যে ঐ এ এস আই  বিট হাউসের সামনে সুভাস কে জুতো পেটা করে। পরে তাদের আটকে রাখেন। উল্লেখ্য, সুভাস এলাকার এক তৃণমূল নেতা। আর এই খবর ছড়িয়ে  পড়তেই এলাকার শ’ চারেক তৃনমূল কর্মী এক যোগে এই ঘটনার প্রতিবাদ জানিয়ে আরামবাগ-বদন গঞ্জ রাস্তা অবরোধ করে রাখেন।

পুলিশের বিট হাউস ঘেরাও করে বিক্ষোভ দেখান।ওই এ এস আইয়ের শাস্তির দাবি জানান।পরে গোঘাট থানার পুলিশ আসে। উত্তেজিত গ্রাম বাসীদের শান্ত করে। তাদের আশ্বস্ত করে বলা হয়, বিষয় টি দেখা হবে।এই আশ্বাস পেয়ে তারা অবরোধ ও বিট হাউস ঘেরাও তুলে দেন।যদিও পুলিশের দাবি সুভাষের বিরুদ্ধে তোলা তোলার অভিযোগ ছিল, তাই তাকে ডাকা হয়েছিল। কোনরকম মারধরের ঘটনা ঘটেনি।