ভাতা বাড়ার ঘোষণায় খুশি শিক্ষকমহল, কার্যকরী কবে তা নিয়ে যা বললেন ঊর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষ

0

নিজস্ব প্রতিনিধি, টিডিএন বাংলা, কোলকাতা: পার্শ্ব শিক্ষকদের প্রতি সুদীর্ঘ বঞ্চনার পর পঞ্চায়েত ভোটের আগে মুখ্যমন্ত্রীর এই ঘোষণাকে বড়সড় চমক বলেই মনে করছেন রাজনৈতিক শিবির। তবুও যোগ্যতার ভিত্তিতে পার্শ্বশিক্ষকদের একদফায় স্থায়ীকরণের কথা বলেছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তা নিয়েই বেশি আশাবাদী রাজ্যের প্রায় ৪৭ হাজার পার্শ্ব শিক্ষক শিক্ষিকা।

নদিয়ার ধোড়াদহ ইউনিয়ন হাই স্কুলের পার্শ্বশিক্ষক রাকিবুল মন্ডল বলছিলেন, আরো অনেক আগেই দরকার ছিল এটা। তবে দিদির এই ঘোষণা যেন মঞ্চেই আটকে না থাকে, যত দ্রুত কার্যকর হবে ততই মঙ্গল আমাদের সাথে সরকারেরও।”

মুর্শিদাবাদের জোতছিদাম প্রাথমিক স্কুলের পার্শ্বশিক্ষিকা সামীম ইয়াসমিন জানান, “ভালো খবর। এবার আমাদের মত মহিলা পার্শ্বশিক্ষিকাদের ট্রান্সফারের কথা ভাবুক সরকার। যারা বাবার বাড়ি থাকতে চাকরি পেয়েছিলাম। কিন্তু বিবাহিত জীবনে এখন বাচ্চা কোলে নিয়ে ডেইলি পাসেঞ্জারি করতে হয় অনেকটা পথ। যা খুবই কষ্টের।”

মুখ্যমন্ত্রীর ঘোষণার প্রতিক্রিয়ায় রাজ্য পার্শ্ব শিক্ষক সমন্বয় সমিতির রাজ্য সম্পাদক সামীম আকতার টিডিএন বাংলাকে বলেন, এই আশ্বাসের এখনো পর্যন্ত কোন গভমেন্ট অর্ডার নেই আমাদের কাছে। যতক্ষণ না সুনির্দিষ্ট জিও পাচ্ছি কোন মৌখিক কথায় বিশ্বাস করছিনা আমরা।

এদিকে পার্শ্ব শিক্ষকদের একাংশের অভিযোগ, মুখ্যমন্ত্রী ক্ষমতায় আসার আগেও তাদের সম্মানজনক বেতন সহ একই ছাতার তলায় আনার প্রতিশ্রুতি দেওয়া হয়েছিল যা আজ অব্দি কার্যকর হয়নি। রেজিস্ট্রেশন অনুযায়ী যে ডিএলএড ট্রেনিং শেষ হবার কথা ২০১৫-২০১৭ সেশনে এতদিনে তা শুরু হল। এমনকি সুপ্রিম কোর্টের আদেশ অনুযায়ী ‘সমকাজে সমবেতনে’র নির্দেশকেও মানা হয়নি বলে অভিযোগ।

দীর্ঘ ১৩টি বছর এই সুসংবাদটির আশায়

থেকে ইতিমধ্যে ৫৮ জন পার্শ্বশিক্ষক আর্থিক অনটনে বিনা চিকিৎসায় মারা গেছেন বলেও তাদের দাবি। যা অত্যন্ত পরিতাপের বলে মনে করছেন শিক্ষিত মহল। যদিও কবে থেকে পার্শ্বশিক্ষকরা বর্ধিত ভাতার সুবিধা পাবেন, তা এখনও ঠিক হয়নি বলেই খবর।