উত্তর মালদার মাদ্রাসা প্রধান শিক্ষকগণ কমিশনের মাধ্যমে  শিক্ষক নিয়োগের দাবিতে সরব

0

তোহাদ্দেশ আলি, টিডিএন বাংলা, চাঁচল: বেঙ্গল মাদ্রাসা এডুকেশন ফোরামের  মালদা জেলা কমিটির উদ্যোগে চাঁচলে রবিবার এক আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়। উক্ত সভায় উত্তর মালদার মাদ্রাসা প্রধান শিক্ষক, সহ শিক্ষকগণ উপস্থিত ছিলেন। দীর্ঘ ছয় বছর ধরে রাজ্যের সরকারি অনুমোদিত ও অনুদান প্রাপ্ত মাদ্রাসা গুলিতে শিক্ষক নিয়োগ প্রক্রিয়া বন্ধ হয়ে আছে। গত বছরের ডিসেম্বর মাসে মাদ্রাসা সার্ভিস কমিশনের ইন্টারভিউ প্রক্রিয়া সম্পন্ন হয়েছে। কিন্তু তার পরেও শিক্ষকের অভাবে ধুঁকতে থাকা  মাদ্রাসা গুলি এখনও নতুন শিক্ষক পায়নি। এই প্রেক্ষিতে ফোরামের সভা থেকে মাদ্রাসা সার্ভিস কমিশনের মাধ্যমে দ্রুত শিক্ষক নিয়োগের দাবি করেছেন উত্তর মালদার মাদ্রাসা প্রধান শিক্ষক, সহ শিক্ষকগণ।


সভায় বক্তব্য রাখেন দেওয়ান আবদুল গণি কলেজের অধ্যাপক ড.মহম্মদ ইসমাইল। তিনি মাদ্রাসা সার্ভিস কমিশনের মাধ্যমে দ্রুত শিক্ষক নিয়োগের দাবি জানান। জিএসএ হাই মাদ্রাসার প্রধান শিক্ষক সৈয়দ মতিউর রহমান বলেন, কমিশনের মাধ্যমেই স্বচ্ছতার সহিত শিক্ষক নিয়োগ সম্ভব। কমিশনের মাধ্যমে শিক্ষক নিয়োগের দাবি জানিয়ে সুপ্রিম কোর্টে আপিল করবেন বলে তিনি জানান।

ভগবানপুর গার্লস হাই মাদ্রাসার প্রধান শিক্ষিকা সাহানা পারভিন জানান, মাত্র সাতজন শিক্ষিকা নিয়ে তিনি কোনরকমে মাদ্রাসা চালান। পড়ুয়াদের স্বার্থে দ্রুত শিক্ষক নিয়োগের দাবি করেন তিনি। সেই সঙ্গে মাদ্রাসা কমিটির দুর্নীতি ও দৌরাত্ম্যের কথা উল্লেখ করে কমিশনের প্রয়োজনীয়তার তুলে ধরেন।


এছাড়াও বক্তব্য রাখেন ইসলামপুর সাগর হাই মাদ্রাসার সহ শিক্ষক নচিকেতা দেবনাথ, নয়াটুুলি হাই মাদ্রাসার সহ শিক্ষক নলিনী কান্ত রায়, থাহাঘাঁটি হাই মাদ্রাসার সহ শিক্ষক আবদুল মান্নান, ধোনিপাড়া আজিজিয়া হাই মাদ্রাসার সহ শিক্ষক মহম্মদ নুরুল হক, ফোরামের জেলা সভাপতি মহম্মদ ওয়াহেদুল্লাহ আলি, সম্পাদক মেহেদী হাসান প্রমুখ।উপস্থিত সকল বক্তাগণ কমিটির দুর্নীতির বিরুদ্ধে ক্ষোভ উগরে দেন। তাঁরা সমাজের দরিদ্র মেধাবী শিক্ষিত যুবক-যুবতীদের যোগ্যতার ভিত্তিতে চাকুরি পাওয়ার একমাত্র উপায় হিসেবে মাদ্রাসা সার্ভিস কমিশনের প্রয়োজনীয়তার উল্লেখ করেন।