একই গ্রামের ছয় তরুণ তরুণীর নজিরবিহীন সাফল্য মাধ্যমিক-উচ্চমাধ্যমিকে

0

মহ: মোস্তাক আহমেদ, টিডিএন বাংলা, মালদা : মালদা জেলার চাঁচল মহকুমার বারোগাছিয়া গ্রামের এবছরের মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিক পরীক্ষার রেজাল্টে এলাকায় যেন উজ্জ্বল তরুণ তরুণীদের চাঁদের হাট। চাঁচল মহকুমা সদরের মূলত দুটি প্রধান প্রভাবশালী শতাব্দী প্রাচীন স্কুল। একটি চাঁচল সিদ্ধেশ্বরী ইনস্টিটিউশন ও আরেকটি চাঁচল রানী দাক্ষায়নী বালিকা বিদ্যালয়। এই দুটি স্কুলেই বাজিমাত করেছে বারগাছিয়া গ্রামের ছাত্র ছাত্রীরা।

একদিকে যেমন এই গ্রাম থেকে মাধ্যমিকে ৬৬৯ নম্বর পেয়ে চাঁচল সিদ্ধেশ্বরী ইনস্টিটিউশন থেকে চাঁচল থানায় প্রথম স্থান অধিকার করেছে আরিজ আফতাব (তুষার) এবং চাঁচল রানী দাক্ষায়নী বালিকা বিদ্যালয় থেকে ৬৬০ নম্বর পেয়ে স্কুলে প্রথম স্থান অধিকার করেছে তানিয়া পারভীন। এই তানিয়া পারভীন এলাকার সকলের পরিচিত শিক্ষক ইউনিস আলী ও শিক্ষিকা সালেমা খাতুন এর একমাত্র মেয়ে। তানিয়া পারভীন এর বিভিন্ন বিষয়ে প্রাপ্ত নম্বরগুলি হল বাংলায় ৯০, ইংরেজি ৯০, গণিত ৯৬, ভৌত বিজ্ঞান ৯৮, জীবন বিজ্ঞান ৯৭, ইতিহাস ৯০, ভূগোল ৯৯। তানিয়া পারভীন সম্পর্কে চাঁচল রানী দাক্ষায়নী বালিকা বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষিকা শ্রীমতি অসীমা ত্রিবেদী বলেন, “তানিয়া পারভীন যে মানের ছাত্রী তাতে তার কাছ থেকে আমরা অনেক বেশি আশা করেছিলাম। তবে যাই হোক তার প্রতি আমাদের অনেক শুভেচ্ছা ও আশীর্বাদ রইলো।”

তবে বিশেষভাবে বলতেই হয় যে, কদিন আগে মহানন্দা নদীতে ডুবে যাওয়া ফারহান আখতার (রায়ান) কিন্তু এই গ্রামেরই ছাত্র। তার মাধ্যমিকে প্রাপ্ত নম্বর ৬০৯। অন্যদিকে উচ্চ মাধ্যমিক রেজাল্ট হওয়ার সাথে সাথে গোটা চাঁচল বাসীর কাছে আবারও বারোগাছিয়া গ্রাম একটি নতুন উদাহরণ স্থাপন করলো। চাঁচল সিদ্ধেশ্বরী ইনস্টিটিউশনের বিজ্ঞান বিভাগে আলফাজ করিম (অনুভব)-৪৪৫, ইরাম মাহাম-৪৪৫ ও ইতেসামা পারভীন-৪৩৫ নম্বর পেয়েছে।

বারোগাছিয়া গ্রামের শিক্ষানুরাগী ব্যক্তিরা টিডিএন বাংলাকে জানান যে, “বারোগাছিয়া বরাবরই মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিকে চোখ ধাঁধানো রেজাল্ট করেছে। তবে এবছর যেন চারিদিক থেকে আমাদের ছেলে মেয়েদের জয়ধ্বনি। আশা রাখছি এরা সকলেই ভবিষ্যতে সফল হয়ে সমাজকে একটি নতুন দিশা দেখাবে। আমাদের পক্ষ থেকে এদের সকলের জন্য রইলো আন্তরিক শুভেচ্ছা।”

এছাড়াও চাঁচলের বিভিন্ন এলাকার ছাত্র ছাত্রীরা যেমন চাঁচল ব্লকপাড়ার নাড়ু মাস্টারের মেয়ে বিদিশা ভট্টাচার্য চাঁচল রানী দাক্ষায়নী বালিকা বিদ্যালয়ের কলা বিভাগ থেকে – ৪৬৫ নম্বর পেয়ে স্কুলে প্রথম ও মালদা জেলায় কলা বিভাগে দ্বিতীয় হয়েছে। ২০১৬ সালে মাধ্যমিক এ রাজ্যে নবম স্থান পাওয়া সুবর্ণ মণ্ডল চাঁচল সিদ্ধেশ্বরী ইনস্টিটিউশন থেকে বিজ্ঞান বিভাগে ৪৭১ নম্বর পেয়ে স্কুলে দ্বিতীয় হয়েছে।