জঙ্গীপুরে খুন হওয়া সাবিত্রি মন্ডলের পরিবারের সঙ্গে দেখা করে তদন্তের দাবি ওয়েলফেয়ার পার্টির

0
নিজস্ব সংবাদদাতা, টিডিএন বাংলা, মুর্শিদাবাদ : ১৬ ই মে ২০১৮ তারিখ মুর্শিদাবাদ জেলার রঘুনাথগঞ্জের শ্মশান রোডের কাস্টম অফিসের পাশে সুকুমার দাসের বাড়ি থেকে মৃত অবস্থায় ডাস্টবিন থেকে পাওয়া যায় দেওলির প্রত্যন্ত গ্রামের গরীব অসহায় পরিবারের মেয়ে ১৪ বছর ৫ মাসের নাবালিকা সাবিত্রী মণ্ডল ( সোমা) এর দেহ। ঘটনাকে কেন্দ্র করে এলাকায় তীব্র চাঞ্চল্য ছড়িয়ে পরে। বাড়িতে প্রায় ৩ দিন ধরে লাশ পড়ে থাকলেও   পুলিশ কোন এফ.আই.আর নেই নি বলে অভিযোগ ।  তার মেয়েকে সুকুমার দাসের ছেলে সুপ্রিয়ো দাস ধর্ষন করে খুন করে বলে অভিযোগ করেছে সাবিত্রির মা কল্পনা মন্ডল। ধর্ষণ কান্ডের প্রতিবাদে সুকুমারের বাড়িতে লোকজন বিক্ষোভ দেখাতে গেলে তাদেরকেও সরিয়ে দেয় বলে অভিযোগ পুলিশের বিরুদ্ধে। এদিকে রবিবার সেই খুনের তদন্তের দাবি নিয়ে ও আসল ঘটনার উতস সন্ধানে   ওয়েলফেয়ার পার্টি ও ফ্র্যাটারনিটি মুভমেন্ট এর প্রতিনিধি এক প্রতিনিধি দল নির্যাতিতার বাড়িতে যায়। প্রতিনিধি দলে ছিলেন ওয়েলফেয়ার পার্টির রঘুনাথগঞ্জ ব্লক সভাপতি মনিরুল ইসলাম, ফ্র্যাটারনিটি মুভমেন্ট এর রাজ্য সম্পাদক আবু তাহের আনসারী, লড়াকু নেতা সইবুল সেখ,রাজ কুমার দাস ও জীবন সাহারা পত্রিকার সম্পাদক মাসিদুল সেখ প্রমুখ।
     ফ্র্যাটারনিটি মুভমেন্ট এর রাজ্য সম্পাদক আবু তাহের আনসারী এই ঘটনার তিব্র নিন্দা জানিয়ে বলেন, প্রায় ১১ দিন হয়ে গেল এই ঘটনা অথচ প্রশাসন ও মিডিয়া নীরব ভূমিকা পালন করছে ।তার প্রশ্ন কোন কারনে পুলিশ এফ.আই.আর নিতে অস্বিকার করছে? তাহলেকি দলিত পরিবারের মেয়ে বলে ঘটনা চাপা দেওয়ার চেস্টা চলছে! তিনি পরিবারের পাশে থেকে তাদের মেয়ের খুনিদের গ্রেপ্তার করে দৃষ্টান্তমুলক শাস্তির দাবি জানান। দ্রুত দোষীদের গ্রেপ্তার করা না হলে আন্দোলনেরও হুশিয়ারি দেন তিনি।
     অন্যদিকে, ওয়েলফেয়ার পার্টির ব্লক সভাপতি মনিরুল ইসলাম বলেন, এটা একটা জঘন্য অপরাধ। আজ সারা দেশে যেভাবে নিত্যদিন এধরনের ঘটনা ঘটে চলেছে তাতে দেশে যদি  সঠিক বিচার ব্যবস্থা থাকতো তাহলে এই রকম ঘটনা দ্বিতীয় বার ঘটতোনা।আমরা মেয়ের প্রকৃত দোষীদের শাস্তির দাবী জানাচ্ছি।