ডব্লিউবিসিএস অফিসার সাফিন বিন রহমানের অকাল মৃত্যু মানতে পারছে না বাবা -মা

0

কিবরিয়া আনসারী, টিডিএন বাংলা, মুর্শিদাবাদ: সাফিন বিন রহমান এর স্বপ্ন ছিল ডব্লিউবিসিএস অফিসার হবে। স্বপ্ন অবশ্য পূরণ হয়েছে। পাশাপাশি ইচ্ছে ছিল ডোমকল কে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার। বিসিএস অফিসার হলেও ডোমকলের মতো সংখ্যালঘু এলাকার কথা তিনি ভোলেননি।

প্রতিনিয়ত চিন্তা করেছেন ডোমকলের মানুষ কে নিয়ে। কীভাবে তাদের বোম বাধা, খুন, বিদ্বেষ প্রভৃতি থেকে দূরে রাখা যায়। সাফিন অবশ্য অনুভব করেছেন সমাজ কে শিক্ষিত করতে পারলে তবেই এগুলোর প্রতিকার করা সম্ভব। সমাজ গঠনে বড় ভূমিকাও নিয়ে ছিলেন সাফিন।

Advertisement
head_ads

কোনো এক ভগ্নদূতের মতো মোবাইল বার্তা ডেকে আনল ভয়াবহ বাস দূর্ঘটনা। দৌলতাবাদের ভয়াবহ বাস দূর্ঘটনায় মৃত হয় সাফিন সহ আরও ৪৫ জনের। তাতেই সর্বশান্ত হয় সাফিনের সব স্বপ্ন, ইচ্ছে। ২০১৩ সালে বিসিএস পরিক্ষায় সাফল্য লাভ করেন সাফিন বিন রহমান। তারপরেই অ্যাসিস্ট্যান্ট  ক্যানেল রেভিনিউ অফিসার পদে নিযুক্ত হন।

তারপরই ইচ্ছে পূরণে এগিয়ে আসেন সাফিন। প্রায় ১ বছর ধরে ছাত্র-ছাত্রীদের ডোমকলের কালিগঞ্জে ফ্রি তে প্রশিক্ষণ দিতে থাকেন বিসিএস এর। তার লক্ষ্য ছিল তার মতোই সংখ্যালঘু ছেলে-মেয়েরা উচ্চপদস্থ আধিকারীক হোক। স্বপ্ন পূরণের জন্যই ফ্রি তে শুরু করেছিলেন বিসিএস এর প্রশিক্ষণ।

ছাত্র-ছাত্রীরা ভাবতে পারছে না তাদের প্রিয় স্যার আর নেই। কোচিং সেন্টার এখন হাহাকার। পরিবারের আত্মীয়দের মধ্যে নেমে এসেছে শোকের ছায়া। বাবা, মা এখনও প্রহর গুনছে তার ছেলে ফিরে আসবে। বাবা, মা বিশ্বাস করতে পারছে না তাদের ছেলে আর নেই। সাক্ষাৎকার দিতে দিতে কান্নাই ভেঙ্গে পড়লেন বাবা,মা।

সাফিনের বাবা জিল্লার রহমান ছেলের মৃত্যুতে শোকাহত। পাগলের মতো খুঁজছে ছেলে কে। ছেলের সব স্বপ্ন করবেন তিনি। স্বপ্ন পূরণে পিছু পা হবে না সাফিনের বাবা। বিসিএস এর কোচিং তিনি বন্ধ হতে দেবেন না। যত কষ্টই হোক না কেনো বাচিয়ে রাখবে ছেলের স্মৃতি।


সাফিনের বাবা জিল্লার রহমান বলেন, আমার সাফিন আব্দুল কালামের মতো হতে চেয়েছিল। আব্দুল কালামের আর্দশে সে অনুপ্রানীত। কিন্তু হে আল্লাহ আমার ছেলে কি পাপ করেছিল। তাই তুমি আমার ছেলে কে এই ভাবে কেঁড়ে নিলে। আমরা ভাবতে পাছি না আমাদের সাফিন আর নেই। আর বাবা বলে ডাকবে না সাফিন।

তিনি আরও বলেন, আমার সাফিন এবং মৃত আরও ৪৫ জন ব্যক্তির জন্য আপনারা সকলে আল্লার কাছে দোয়া করবেন। তারা সকলে জেনো ভালো থাকে। আপনাদের সকলের কাছে আমার নিবেদন আগামী শুক্রবার জুম্মার দিন আমার ছেলে এবং বাস দূর্ঘটনাই মৃত সকলের জন্য দোয়া করবেন।

head_ads