ফুরফুরাকে নিয়ে কি রাজনীতি করা বন্ধ হতে যাচ্ছে?

0

নিজস্ব সংবাদদাতা, টিডিএন বাংলা, কলকাতা: প্রতি বছর ফুরফুরার তিনদিনের ঈসালে সওয়াবে রাজনৈতিক নেতারা  গেলেও এবার কাউকে দেখা যায়নি। আর রাজনৈতিক নেতাদের না যাওয়া বিষয়ে পীরজাদারা বলছেন, এবার ফুরফুরা নিয়ে রাজনীতি করা বন্ধ হলো।

৬ থেকে ৮ মার্চ পর্যন্ত ঈসালে সওয়াব হয়েছে ফুরফুরায়। এখানে লক্ষ লক্ষ মানুষের সমাগম হয়। এই বিপুল সংখ্যক মানুষের মন পেতে রাজনৈতিক নেতারা এই কয়টা দিন ফুরফুরায় পড়ে থাকেন। শাসক দলের একাধিক নেতা, মন্ত্রী, বিধায়ক, সাংসদ ছাড়াও প্রায় সকল বিরোধী রাজনৈতিক দলের নেতারা আসেন। কিন্তু এই প্রথবার, ফুরফুরার ঈসালে সওয়াবে কোনও রাজনৈতিক নেতা যাননি। পশ্চিমবঙ্গ ছাড়াও আসাম, ত্রিপুরা, ঝাড়খণ্ড ও বাংলাদেশের মানুষ আসেন এখানে। কিন্তু কেন রাজনৈতিক নেতারা ‘দুআ নিতে’ এলেন না? পীরজাদা ত্বহা সিদ্দিকী বলছেন,”আসেনি ভালো হয়েছে। এখানে নেতারা এলে তাঁদের নিরাপত্তার জন্য লাখ লাখ মানুষের সমস্যা হয়।”

অন্যদিকে আরেক জনপ্রিয় পীরজাদা তামিম উদ্দিন সিদ্দিকী বলেন,”ফুরফুরাকে নিয়ে  রাজনীতি হয়েছে। আসলে এই তিনদিন আধ্যাত্মিক শক্তি বাড়ানোর দিন। পুণ্য অর্জনের দিন। নিজেকে নতুন গড়ে তোলার জন্য মানুষ এখানে আসেন। রাজনৈতিক নেতারা এখানে আসেন লোক দেখানোর জন্য। এইসব বন্ধ হয়েছে ভালো হয়েছে। ফুরফুরায় আগত মেহমানরা জিকির করছেন, কোনও সমস্যা নেই।”

তবে রাজনীতির লোকেরা ভবিষ্যতে আসবে বলে ওই পীরজাদার অভিমত। তামিম সিদ্দিকী বলেন,”রাজনৈতিক নেতারা এখন না এলেও ভবিষ্যতে আসবেন, কেননা ভোটের জন্য তাঁদের এখানে আসতে হবে। আর আমরা মনে করি,যেকেউ এখানে আসতেই পারেন,কিন্তু কেউ না এলে আমি কী করতে পারি। আসলে রাজনৈতিক নেতারা বুঝে গেছেন, ফুরফুরা সিলসিলার অনুগামীরা সচেতন হয়েছে।”
তবে পীরজাদারা যায় বলুন না কেন,রাজনৈতিক নেতারা এবার ফুরফুরায় না আসায় নানাজন কিন্তু নানা মন্তব্য করছেন। কেউ বলছেন, নেতাদের অহংকার হয়েছে আবার কেউ বলছেন আসেনি ঠিক হয়েছে।

tdn_bangla_ads