অনলাইন গেম ‘ব্লু হোয়েল’ : কিশোরদের জন্য মরণফাঁদ

স্পোর্টস ডেস্ক, টিডিএন বাংলা : খেলাধুলায় জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে অনলাইন গেম। নিজেদের চাহিদা অনুযায়ী ইচ্ছামতো গেম ডাউনলোড করে বা অনলাইনে থেকেই খেলা যায়। তবে অনলাইন গেম ‘ব্লু হোয়েল’ যেন একটি মরণফাঁদ। এ গেমে ৫০টি ধাপ রয়েছে, যার সর্বশেষ ধাপ মৃত্যু।
ধাপগুলোয় আছে হাত-পা কাটার মতো বিপজ্জনক কাজ। শুধু কাজ করলেই হয় না। উপযুক্ত প্রমাণ হিসেবে ছবিও তুলতে হয়। তবেই চ্যালেঞ্জপূর্ণ হয়েছে বলে ধরা হবে। এ গেমের শেষ ধাপে বড় বিল্ডিংয়ের ছাদ থেকে ঝাঁপ মারার নির্দেশ দেয়া হয়। সেই নির্দেশ অনুসরণ করতে গিয়েই ছাদের ওপর থেকে লাফ দিয়ে আত্মহত্যা করেছেন ভারতের এক কিশোর।
ইউরোপ ও রাশিয়ার বিভিন্ন দেশগুলোতে এ অনলাইন গেম খেলে আত্মহত্যার ঘটনা ঘটলেও ভারতে এ ঘটনা এই প্রথম বলে জানিয়েছে পুলিশ।
নিহতের কিশোরের নাম মনপ্রীত সিংহ। সে মুম্বাইয়ের একটি স্কুলে ক্লাস নাইনের ছাত্র ছিল। তার পরিবারের সঙ্গে এখনও কথা বলতে পারেনি পুলিশ। তবে মনপ্রীতের বন্ধুদের সঙ্গে কথা বলেছে পুলিশ।
মনপ্রীতের বন্ধুরা জানিয়েছে, ‘ব্লু হোয়েল’ নামে এক অনলাইন গেম নিয়ে চর্চা করত ওই কিশোর। এই গেমের চূড়ান্ত চ্যালেঞ্জ নিতে গিয়েই আত্মহত্যার পথ বেছে নিয়েছে মনপ্রীত।
২০১৩ সালে রাশিয়ায় শুরু হয় ওই মারণখেলা। প্রথম মৃত্যুর ঘটনা ঘটে দু’বছর পর। প্রচলিত ধারণা অনুযায়ী, নীল তিমিরা মারা যাওয়ার আগে জল ছেড়ে ডাঙায় ওঠে। যেন আত্মহত্যার জন্যই। সেই থেকেই এ গেমের নাম হয়েছে ‘ব্লু হোয়েল’।
এর আগেও এ অনলাইন গেমের জন্য বিশ্বজুড়ে একাধিক আত্মহত্যার ঘটনা নজরে এসেছে পুলিশের। পরিসংখ্যান বলছে, গত তিন মাসে রাশিয়া এবং পার্শ্ববর্তী এলাকায় ১৬ তরুণী এ গেমে আসক্ত হয়ে আত্মহত্যা করে। তারপর তদন্তে নেমে পুলিশ জানতে পারে, এ মারণ গেম পেজের অ্যাডমিন ফিলিপ বুদেকিন নামে রাশিয়ার ২১ বছরের এক যুবক। ফিলিপ বর্তমানে পুলিশ হেফাজতে; কিন্তু ফিলিপকে গ্রেফতার করলেও এ পেজটি এখনও সচল।