আর্দশ সমাজ গঠনের ডাক হুগলীর মহিলা জামায়াত ও জিআইও -র

নিজস্ব প্রতিনিধি, টিডিএন বাংলা, হুগলী: বিশ্বের যা কিছু কল্যাণকর তার অর্ধেক ভাগীদার নারীরা হলেও আজ তারা লাঞ্ছিত সর্বত্র। ইভটিজিং থেকে শুরু করে খুন, ধর্ষণ, বধূ নির্যাতন বেড়েই চলেছে সমাজে। আধুনিকতার বেশে আজও পণের বলি হচ্ছে হাজারো নারী। এর জন্য আধুনিক সমাজ ব্যবস্থাকেই দায়ী করছেন বুদ্ধিজীবিমহল। তাই, এবার নিজেদের সচেতন করার পাশাপাশি আদর্শ সমাজ গঠনের ডাক দিল গার্লস ইসলামিক অর্গানাইজেশন ও জামায়াতে ইসলামীর হুগলি জেলা মহিলা শাখা। আর সেই লক্ষ্যে একটি বিশেষ প্রোগ্রামের আয়োজন করে তারা। রবিবার তারকেশ্বরের হরিনখোলায় অনুষ্ঠিত সেই আলোচনা সভায় অংশ নেয় জেলার বিভিন্ন প্রান্ত থেকে আগত শতাধিক মহিলা এবং ছাত্রীরা।

 

পরিবার ও সমাজে নারীদের গুরুত্ব তুলে ধরে প্রাক্তন জেলা সভানেত্রী রেহানা সুলতানা বলেন, “পরিবার হল রাষ্ট্রের একক। আর এই পরিবার গঠন করি আমরাই। তাই আদর্শ সমাজ ও রাষ্ট্র গঠন করতে আগে আমাদের নিজেদের পরিবারকে গড়তে হবে। সমাজের অর্ধেক অংশকে বাদ দিয়ে সমাজ কখনোই সামনে এগিয়ে যেতে পারে না।” সুস্থ সমাজ গড়তে পুরুষদের পাশাপাশি নারীদেরকেও সমান ভাবে এগিয়ে আসার আহব্বান জানান তিনি।

 

দক্ষিণবঙ্গ জিআইও সম্পাদিকা মায়মুনা খাতুন বলেন, “সমাজের সর্বত্র আজ অশ্লীলতায় পূর্ণ। এর বিকল্প হিসেবে আমাদের সুস্থ সংস্কৃতির চর্চা করতে হবে।” তিনি আরও বলেন, যেকোনো সামাজিক বিপ্লবে যুগেযুগে যুবক-যুবতীরাই অগ্রণী ভূমিকা রেখেছে। তাই সমাজ পুনর্গঠনে পড়াশুনার পাশাপাশি ছাত্রীদেরও এগিয়ে আসতে হবে। এছাড়াও অন্যান্য বক্তারা বিভিন্ন বিষয়ে আলোচনা করেন।

সভায় আগত শ্রোতারা এই উদ্দ্যোগকে সাধুবাদ জানানোর পাশাপাশি সুন্দর পরিবার ও সমাজ গড়তে এগিয়ে আসার প্রতিশ্রুতি দেন। হুগলীকে আর্দশ জেলা গড়ার লক্ষ্যে এধরণের আরো নানান কর্মসূচি আগামীতেও গ্রহণ করা হবে বলে জানিয়েছেন সংগঠনের জেলা সভানেত্রী আলেয়া বেগম। উক্ত সভায় উপস্থিত ছিলেন জামায়াতে ইসলামী হিন্দের জেলা সভাপতি  সৈয়দ সাইফুল্লাহ, মহিলা জেলা সভানেত্রী আলেয়া বেগম, জিআইও-র জেলা সভানেত্রী ফতেমা খাতুন প্রমুখ।