আগ্রাসী লোকেরা দুনিয়ায় ধ্বংস ছাড়া কিছু করতে পারেনা-তপন ঘোষ সম্পর্কে জামাতে ইসলামি

জামিতুল ইসলাম, টিডিএন বাংলা , কলকাতা  : ১৪ ফেব্রুয়ারি কলকাতার রানিরাসমনি রোডে সভা করেন প্রাক্তন আরএসএস নেতা তথা হিন্দু সংহতির সভাপতি তপন ঘোষ।এখানেই একাধিক নেতা উগ্র ভাষণ দেন।কিন্তু তপন ঘোষের বক্তব্যকে গুরুত্ব দিতে নারাজ জামাতে ইসলামি হিন্দ পশ্চিমবঙ্গের রাজ্য সভাপতি মুহাম্মদ নুরুদ্দিন। শনিবার টিডিএন বাংলাকে তিনি বলেন,”প্রথম কথা শুনুন,আমি কারোর বক্তব্য কারোর কাছ থেকে শুনে ,তাদের সম্পর্কে ধারণা করা পছন্দ করিনা বা তার কোনো উত্তর দেওয়াকে আমি পছন্দ করিনা।বিভিন্ন মিডিয়ায় আলোচনা হচ্ছে, আপনারাও করছেন,অনেকেই বলছে যে সেখানে সাম্প্রদায়িকতার সুড়সুড়ি ও সাম্প্রদায়িকতার প্রকাশ্যে আস্ফালন করা হয়েছে।”তিনি হিন্দু সংহতির নামের ‘সংহতি’কে ব্যাখ্যা করে বলেন,”আমি শুধু এতটুকুই বলতে চাই যে,সংহতির মধ্যে একটা ভালো দিক আছে,যেখানে যেকোনো মানুষ, যেকোনো সম্প্রদায় , যেকোনো জাতি তারা সুসংহতি হবে।একে অপরের মধ্যে তাদের মেল মহব্বত , ভালোবাসা সম্পর্ক তৈরি হবে ।এটা ভালো জিনিস,কিন্তু একের সংহতি অপরের ধ্বংসের কামোনা করাটা এটা ঠিক নয়। সেটা যে কারোর ক্ষেত্রেই হউক ।মুসলমানরা যদি সংহতি হয় আর অন্য জাতিকে বিভক্ত করে দেওয়া বা ক্ষতি করার চেষ্টা করে সেটাও যেমন কাম্য নয়, তেমনি কোনো হিন্দু তারা সংহতির ডাকে তারা অন্য জাতিকে , খ্রিষ্টান , মুসলিম সম্প্রদায় তাদের প্রতি আক্রমনোক্তক পোষণ করে সেটাও ঠিক নয়।”জামাতে ইসলামির ওই নেতা আরও বলেন,”আর আমার বক্তব্য হচ্ছে যে পৃথিবীর কখনো খল চরিত্রের,আগ্রাসী কোনো শুধুমাত্র নীতি বাচক ধারণায় আশ্রয় দেয়নি। এই নিয়ে ভারতের বাঙালি সমাজকে বলি যে, এনিয়ে কোনো উদগ্রীব হবার বিষয় নেই।মানুষ সবসময় ভালোকেই,ইতিবাচক দিককে গ্রহণ করে, প্রমোট করে এবং তারাই বাড়ে। যাদের মধ্যে ধ্বংসাত্মক প্রবণতা বেশি , যারা পৃথিবীতে অশান্তি সৃষ্টি করে, বিপর্যয় সৃষ্টি করে, মানুষ মানুষের মধ্যে সম্পর্ক খারাপ করে তারা পৃথিবীতে ধীরে ধীরে লয় হয়ে যায়।কেউ যদি হিংসা ,বিদ্বেষ ছড়াতে চাই পৃথিবীতে সে এমনি এমনি বিদায় হয়ে যাবে। এনিয়ে কোনো উদগ্রীবের বিষয় নেই।” মুহাম্মদ নুরুদ্দিন মুসলিমদের শান্ত থাকার পরামর্শ দিয়ে বলেন,”মুসলমাদের বিরুদ্ধে কথা হচ্ছে বলে আমাদের কে ঐক্যবদ্ধ হয়ে আন্দোলন করতে হবে এগুলি ঠিক নয়। আমরা ভালো কাজ করে যাবো ।মানুষের কল্যাণের কথা বলে যাবো।সবার ভালো হউক।এই ধারণা পোষণ করে যাবো নিজেদের মধ্যে । এটাই আমাদের নীতি এটাই আমাদের আদর্শ।এর মধ্যেই মানুষের চরিত্রের বিকাশ হবে।”

দেখুন ভিডিও