যারা বাবরি মসজিদ ভেঙেছে তারা দেশদ্রোহী-কলকাতার সভায় মন্তব্য দলিত মুসলিম নেতাদের

নিজস্ব সংবাদদাতা, টিডিএন বাংলা, কলকাতা: যারা বাবরি মসজিদ যারা ভেঙেছে তারা দেশদ্রোহী। বুধবার কলকাতার রানিরাসমনির সভায় এমনই মন্তব্য করলেন দলিত মুসলিম নেতারা। এদিন একগুচ্ছ দলিত নেতা উপস্থিত ছিলেন। রাজ্যের বিভিন্ন মুসলিম সংগঠনের নেতাদেরও দেখা গেছে মঞ্চে। প্রায় সকল বক্তা বাবরি মসজিদ ইস্যু একটা রাজনৈতিক ইস্যু বলে মন্তব্য করেন। দলিত নেতাদের দাবি, অবিলম্বে বাবরি মসজিদ পুনর্নির্মাণ করতে হবে।
সভায় সংখ্যালঘু যুব ফেডারেশনের রাজ্য সম্পাদক মুহাম্মদ কামরুজ্জামান বলেন, “যারা আইন হাতে তুলে নিয়ে বাবরি মসজিদ ভেঙেছে তারা দেশদ্রোহী।একটা মামলার রায় আসেনি, অথচ প্রবীণ তোগাড়িয়া, নরেন্দ্র মোদী রাম মন্দির বানানোর কথা বলছেন কেন? আইনকে এতো ভয় কেন?”
এদিন সভায় জামায়াতে ইসলামি হিন্দের মুহাম্মদ নুরুদ্দিন আম্বেদকরের আদৰ্শ মুছে দিতেই বাবা সাহেবের মৃত্যু দিনে বাবরি ভেঙেছে বলে মন্তব্য করেন। তিনি মন্দির ইস্যুকে একটা রাজনৈতিক ইস্যু বলে উল্লেখ করেন।


দলিত মুসলিম ঐক্য ভাঙার চেষ্টা করছে বিজেপি ও সঙ্ঘ পরিবার। এমনই অভিযোগ দলিত নেতা সুকৃতি রঞ্জন বিশ্বাসের। তিনি বলেন, “সাম্প্রদায়িক শক্তি দলিতদের মধ্যে মিথ্যা প্রচার করছে। দলিতদের উচিৎ হবে বিজেপি ও সংঘের ফাঁদে পা না দেওয়া। বাবা সাহেবের আদৰ্শ নিয়ে চলতে হবে আমাদের।”
সভায় শিখ নেতা সুখ নন্দন সিং থেকে দলিত বহুজন নেতা শরদিন্দু উদ্দীপন, বিশ্ব কোষ পরিষদের ডঃ পার্থ সেনগুপ্ত থেকে সুন্নত অল জামায়াতের মুফতি আব্দুল মতিন সকলেই উপস্থিত ছিলেন। মতুয়া ধর্মের সুচেতা গোলদার, ডঃ সরবাণী, ঐতিহাসিক কনিষ্ঠ চৌধুরী, লেখক মনোরঞ্জন ব্যাপারী প্রমুখ ব্যাক্তি সাম্প্রদায়িক রাজনীতির তীব্র বিরোধীতা করেন।