আল্লাহর নবী মানুষের মুক্তিদূত, রোহিঙ্গা ইস্যুতে আরব নীরব কেন? : জামাতে ইসলামির মুহাম্মদ নুরুদ্দিন

নিজস্ব সংবাদদাতা, টিডিএন বাংলা, কলকাতা : আল্লাহর নবী হজরত মুহাম্মাদ (স) মানুষের মুক্তিদূত, তিনি মানুষের কল্যাণ চেয়েছেন। অথচ নবীর দেশ হওয়া সত্ত্বেও রোহিঙ্গা ইস্যুতে আরব নীরব কেন? কলকাতায় মুসলিম সংগঠনগুলির বিশাল জনসভায় এই প্রশ্ন তুললেন জামাতে ইসলামি হিন্দ পশ্চিমবঙ্গের রাজ্য সভাপতি মুহাম্মদ নুরুদ্দিন।তিনি বলেন, “সৌদি আরবের বাদশা মুখে কুলুপ এঁটে বসে আছে। কেন আরবের সরকার নীরব? কেন আরবের ইমাম নীরব? আল্লাহর নবী মানবতার জন্য কাজ করেছেন।”
মুসলিম হওয়ার কারণেই রোহিঙ্গা গণহত্যা হচ্ছে বলেও তিনি মন্তব্য করেন। মুহাম্মদ নুরুদ্দিন বলেন,  “আন্তর্জাতিক সংস্থাগুলিকে বলবো, এই হত্যা বন্ধ করতে বলুন মায়ানমার সরকারকে।
এই শিশুদের কী অপরাধ ছিল? এই নারীদের কী অপরাধ ছিল? এই বৃদ্ধদের কী অপরাধ ছিল? এদের একটাই অপরাধ যে এরা মুসলিম, আল্লাহ কে এক বলে মেনে নিয়েছে।

 

 

আজকের এই ঐতিহাসিককে জনসভা থেকে ভারতের প্রধানমন্ত্রীকে বার্তা দিতে চাই, আমাদের প্রতিবেশী দেশে জাতি নির্মূলের চক্রান্ত চলছে। আমরা অংসাং সুকির হয়ে এক সময় পথে নেমেছিলাম। আমাদের দেশ যদি গণতান্ত্রিক হয়, আমাদের দেশের সরকার যদি গণতান্ত্রিক সরকার হয় তবে মায়ানমারের সরকারের বিরোধীতা করুক। “জামাতে ইসলামি হিন্দের রাজ্য সভাপতি মুহাম্মদ নুরুদ্দিন আরও বলেন, “মায়ানমারে যা হচ্ছে, ফিলিস্তিনে যা হচ্ছে তা সুসংগঠিত গণহত্যা। তাই আমাদের মধ্যে ফতোয়াবাজি বন্ধ করতে হবে। এক হতে হবে। ঠান্ডা মাথায় সুপরিকল্পিত ভাবে এক সাথে কাজ করতে হবে।”