বিশেষ প্রতিবেদন, টিডিএন বাংলা : মায়ানমার সরকার রোহিঙ্গাদের উপর অত্যাচারের সীমা বাড়িয়েই চলেছে।শত শত বছর থেকে বসবাস করে আসা রোহিঙ্গা মুসলিমদের নাগরিকত্ব কেড়ে তাদেরকে শেষ করে দিচ্ছে অহিংস নীতি অবলম্বনকারী বৌদ্ধ ধর্মালম্বিরা ও শান্তিতে নোবেলজয়ী সুচির সরকার!!! তারা রোহিঙ্গাদের জীবনের সমস্ত রকম অধিকার কেড়ে নিতে চাই । থাকা -খাওয়া -ধর্মাচরন -বিয়েসাদি -চলাফেরা-শিক্ষাদীক্ষা সব বন্ধ করে দিয়েছে।হাজার হাজার শিশু, বৃদ্ধা, মহিলা না খেতে পেয়ে মারা যাচ্ছেন। কত মানুষ পাচারকারীদের খপ্পরে পড়ে জীবন হারাচ্ছেন। এই শীতে তারা অসহায়ের মতো বিভিন্ন শরণার্থী শিবিরের একটুকরো ত্রিপলের তলায় ছোট্ট ছোট্ট শিশুদের নিয়ে বাস করছেন। সেনাবাহিনীরর অত্যাচারে সবাই অতিষ্ঠ।সেনারা রোহিঙ্গাদের হত্যা, লুট, ধর্ষনে মত্ত হয়ে গেছে।তাদের বাড়িঘর দোকানপাট, মসজিদ সব ভেঙে গুড়িয়ে দেওয়া হচ্ছে।ওদের জন্য গোটা পৃথিবীর সকল দেশের দরজা বন্ধ হয়ে গেছে। কোনো দেশ রাখাইন প্রদেশে ত্রান নিয়ে ঢুকতে পারছেন না।  কাটাতারের বেড়ায় তাদের জীবন ধুকে ধুকে শেষ হয়ে যাচ্ছে।   এই অসহায় রোহিঙ্গাদের দোষ তারা মুসলিম। তাদের পক্ষে আওয়াজ উঠানোর মতো কেউ নেই। গোটা বিশ্ব আজ নিরব। জাতিসংঘ চুপ।

   নোবেলজয়ী আন সাং সুচির ভুমিকা নিয়ে নানা মানবাধিকার সংস্থা প্রশ্ন তুলেছেন। রোহিঙ্গা দের সমস্যা নিরশনে সুচি সরকার কতটা পদক্ষেপ নেই তার দিকে তাকিয়ে গোটা বিশ্ববাসী????