সামাউল্লাহ মল্লিক

সামাউল্লাহ মল্লিক, টিডিএন বাংলা : তিনি দেশের প্রধানমন্ত্রী। বিদেশে কিভাবে এবং কোন নীতিতে চললে তাঁদের সঙ্গে সম্পর্ক ভালো করা যাবে তা তিনি ভালোই বোঝেন। তাই বলে নিজ দলের নেতা, কর্মী, সমর্থকদের নারাজ করে আফ্রিকান দেশ রুয়ান্ডায় ২০০টি গরু দান করবেন নরেন্দ্র মোদি? তাও আবার এমন একটি দেশকে, যাদের অন্যতম প্রিয় খাদ্য হল বিফ স্টু অর্থাৎ আলু, কড়াইশুটি, গাজর দিয়ে গোমাংসের পাতলা ঝোল?

মোদির এহেন কর্মকাণ্ডে দেশজুড়ে যেখানে গেল গেল রব পড়ে যাওয়ার কথা ছিল, সেখানে মিডিয়া থেকে শুরু করে খাস জনতা সকলেই নীরব। যদিও ভাষা ও চেতনা সমিতির অধ্যাপক ইমানুলের মতো অনেকে আবার ব্যাঙ্গ করে সোশ্যাল মিডিয়ায় লিখেছেন,’যে দেশের প্রিয় খাদ্য বিফ স্টু, সেই রোয়ান্ডায় ২০০ গরু দান করছে মোদি সরকার। আর দেশে পিটিয়ে মারা। রাজস্থানে গোশালায় মৃত ৫০০ গরু।’ নরেন্দ্র মোদি মঙ্গলবার আফ্রিকার দেশ রুয়ান্ডার একটি দরিদ্র গ্রামে ২০০ গরু উপহার দিয়েছেন। রুয়ান্ডা সরকারের গিরিনকা কর্মসূচির অধীনে এই গোদান করেছেন তিনি। কাকতলীয়ভাবে তার ঠিক একদিন আগেই দেশের মুসলমানদের গোমাংস খাওয়া বন্ধের নিদান দিয়েছেন বিজেপি, আরএসএসের নেতারা।

ওই নেতাদের কথায়, গরুর মাংস খাওয়া ত্যাগ করলে গণপিটুনি বন্ধ হবে। ‘বিজেপি’র ফায়ারব্র্যান্ড নেতা বিনয় কাটিয়ার বলেছিলেন, ‘দেশে গরু জবাই বন্ধ না হলে গণপিটুনিও বন্ধ হবে না।’ আরএসএস নেতা ইন্দ্রেশ কুমারতো যথারীতি হুমকির সুরে মন্তব্য করেছিলেন যে, ‘গরুর মাংস খাওয়া ছেড়ে দিন, তাহলেই গণপিটুনি বন্ধ হয়ে যাবে।’ ইন্দ্রেশ কুমারের যুক্তি, ‘মক্কা ও মদিনায় গরু জবাই করা অপরাধ। তাহলে আমরা গরু জবাই বন্ধ করতে অঙ্গীকারবদ্ধ হতে পারি না কেন?’

একদিন পরপর বিজেপি নেতাদের হুমকিনামা ও প্রধানমন্ত্রীর গোদান ইস্যুতে আমজনতা আশঙ্কা করছিল যে, এইবার বুঝি নরেন্দ্র মোদির উপর তিব্র ক্ষোভে ফেটে পড়বে গো-রক্ষক বাহিনী। কেননা, তিনি আলু, কড়াইশুটি, গাজর দিয়ে গোমাংসের পাতলা ঝোল পছন্দকারীদের ২০০ গরু দান করেছেন খাওয়ার জন্য। (যদিও দেশটির অপুষ্ট শিশুদের গরুর দুধ জোগানই এর প্রধান উদ্দেশ্য বলে উল্লেখ করা হয়েছে অধিকাংশ মিডিয়ায়।) কিন্তু কোথায় কি? কথায় আছে যতটা গর্জে ততটা বর্ষে না!

যারে দেখতে নারি, তার চলন বাঁকা! তবে কি বিজেপি আরএসএস মুসলিমদের বিরোধিতার করতেই দেশজুড়ে গো-রক্ষদের বিষবাষ্প স্প্রে করছে? দেশজুড়ে চলছে তথাকথিত গো-রক্ষকদের তাণ্ডব। সেইসব দেখেও বরাবরই নীরব থেকেছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। কখনও মুখ খুললেও প্রিয় সন্তানকে আদুরে গলায় ধমক দেওয়ার মতো করেই দায় সেরেছেন। সেই নরেন্দ্র মোদিই আফ্রিকার দেশ রুয়ান্ডায় ২০০ গরু উপহার দিয়ে কি বার্তা দিলেন? তবে কি রাজনৈতিক স্বার্থে দেশে মা বাঁচান? আর রাজনৈতিক স্বার্থেই বিদেশে মা বলিদান? দেশবাসীর এই প্রশ্নের উত্তর  দিতে পারবেন তো মোদিজী?