টিডিএন বাংলা ডেস্ক: রমজান মাস জুড়েই ইফতারে সবাই কম বেশি খেজুর খেয়ে থাকেন। মুসলিমদের জন্য খেজুর অনেক প্রিয় একটি খাবার। রোজা ইফতারের খাদ্যতালিকায় এর স্থান থাকে সর্বাগ্রে। এই খেজুরে রয়েছে অসাধারণ কিছু পুষ্টিগুণ। খেজুরে রয়েছে ভেষজ ও অনেক পুষ্টি উপাদান। সারাদিন রোজা রাখার পর খানিকটা পুষ্টির ঘাটতি পূরণে সাহায্য করে খেজুর।

আমরা অনেকেই হয়তো জানি না যে সৌন্দর্য বর্ধনে এবং শারীরিক সৌন্দর্য ধরে রাখতেও খেজুরের অনেক গুণ রয়েছে। চুল ও ত্বকের ক্ষেত্রে ম্যাজিকের মতো কাজ করে খেজুর। খেজুরে রয়েছে জল ও খনিজ পদার্থ, আমিষ, শর্করা, ক্যালসিয়াম, আয়রন, ভিটামিন বি-১, ভিটামিন বি-২, ও সামান্য পরিমাণ ভিটামিন সি, ফলিক অ্যাসিড, সালফার ম্যাগনেসিয়াম, ম্যাঙ্গানিজ, প্রোটিন ইত্যাদি।

দীর্ঘ সময় খালি পেটে থাকার কারণে দেহে গ্লুকোজ এর ঘাটতি দেখা দেয়।
শরীরের এই প্রয়োজনীয় গ্লুকোজ এর ঘাটতি পূরণ করতে সাহায্য করে খেজুর। তাই প্রতিদিন ইফতারে খেজুর খাওয়া উচিত। এছাড়া খেজুরে রয়েছে আরও অনেক উপকারী গুণ যেমন-
১. হজম শক্তি বর্ধক যকৃত ও পাকস্থলীর শক্তিবর্ধক।
২. খেজুর স্নায়ুবিক শক্তি বৃদ্ধি করে। ৩. খেজুরে খাদ্যশক্তি থাকায় দুর্বলতা দূর করে ।
৪. খেজুর শরীরে রক্ত উৎপাদন করে।
৫. হৃদরোগীদের জন্য খেজুর বেশ উপকারী ফল ।
৬. তাছাড়া খেজুর রুচি বাড়ায়।
৭. দৃষ্টিশক্তি বাড়ায়
৮. ফুসফুসের সুরক্ষার পাশাপাশি মুখগহ্বরের ক্যান্সার প্রতিরোধ করে খেজুর।
৯. খেজুরে আছে ডায়েটরই ফাইবার, যা কোলেস্টেরল থেকে মুক্তি দেয়।
১০. তাছাড়া খেজুর শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়।