গরম দরজায় কড়া নাড়ছে, সুস্থ থাকতে চান? এই ৪ রোগ থেকে সাবধান

টিডিএন বাংলা ডেস্ক : বসন্তের বাতাসে এখনো হিমেল হাওয়া। তবে ক্যালেন্ডার বলছে, গরম কড়া নাড়ছে। এখন তার ভেতরে প্রবেশের অপেক্ষা। তবে গরম আসার সঙ্গে সঙ্গে শরীরে বাসা বাঁধে কিছু রোগ। চিকিৎসকরা বলছেন, আগাম সতর্কতা প্রয়োজন। তাহলে সুস্থ ও নীরোগ থাকা সম্ভব। গরম হাওয়ার দাপট দেখা দিলেই চিকেন পক্স, ম্যালেরিয়া, চর্মরোগ দেখা দেওয়ার সম্ভাবনা থাকে। যে ৪ টি রোগ বেশি জ্বালাতনের কারণ হয়, তা হল–

কনজাংটিভাইটিজ-
চিকিৎসকরা বলছেন, গরম কালে এই রোগ বেশি হয়। একে স্থানীয়ভাবে চোখ ওঠাও বলে। সাধাণত চোখ ফুলে যায়। চোখ লাল হয়ে যায়। এই রোগ থেকে মুক্তির উপায়, বারবার চোখে পরিষ্কার জলের ঝাপটা। সাধারণত সংক্রমণ থেকে এই রোগ হয়। সঙ্গে সঙ্গে চিকিৎসকের পরামর্শ নেওয়া উচিত। কিছু আই ড্রপ চিকিৎসকের পরামর্শমতো ব্যবহার করলে সংক্রমণ দূর হয়ে যাবে।

ফাঙ্গাল ডিজিজ-
গরমে ফাঙ্গাল ডিজিজের সম্ভাবনা প্রবল। বাতাসে আর্দ্রতা বেড়ে যায়। ফলে ফাঙ্গাস, ব্যাক্টেরিয়া ত্বকের ওপর সংক্রমণ ছড়ায়। এর ফলে চামড়ায় র্যাশ হয়। যতদূর সম্ভব পরিষ্কার জলে স্নান, পরিষ্কার পোশাক পরা ও ত্বক শুকনো রাখতে হবে। তাহলে এই রোগের হাত থেকে মুক্তি পাওয়া যাবে।

ম্যালেরিয়া-
এটা মশা বাহিত রোগ। সাধারণত গ্রীষ্ণকালে এই রোগ হওয়ার সম্ভাবনা প্রবল। জমা জল থেকে মশার বাসা হয়। সেখান থেকে মশার কামড়ে এই রোগ হতে পারে। তাই বাড়ির চারপাশে যাতে মশার বাসা তৈরি না হয়, সেব্যাপারে সতর্ক থাকতে হবে। কারণ ম্যালেরিয়া হলে ভোগান্তি চরম। তবে জ্বর যদি না কমে, রোগীকে রক্তপরীক্ষা করান ও দ্রুত ডাক্তারের পরামর্শ নিন।

প্রবল তাপ জনিত সমস্যা-
এই সময় প্রবল তাপে নানা রকম রোগ দেখা যেতে পারে। যেমন- হিট স্ট্রোক, ডিহাইড্রেশন, ফুড পয়জনিং প্রভৃতি। বাইরে রোদে বেশি ঘোরোঘুরি করলে হিট স্ট্রোক হতে পারে। সঙ্গে সঙ্গে ডাক্তারের পরামর্শ নিন।

গরমকালে যাতে ডিহাইড্রেশন না হয়, তার জন্য চিকিৎসকরা বেশি করে নুন, চিনির জল খাওয়ার পরামর্শ দেন।

এছাড়া গরমে ডাক্তারদের পরামর্শ কড়া পাকের খাবার না খাওয়াই ভালো। হালকা ঝোল ভাত, বেশি করে ফল খাওয়ার পরামর্শ দেন ডাক্তাররা। জল খেতে হবে পর্যাপ্ত। তাহলে গ্রীষ্ণে চাঙ্গা থাকা যাবে। শুধু মাথায় রাখতে হবে, এই টিপসগুলো।