টিডিএন বাংলা ডেস্ক: রানাঘাটের সেই ভবঘুরে রানু মন্ডলের এখন যেন স্বপ্নের স্বর্গে বসবাস। রানাঘাট স্টেশন থেকে গান গেয়ে স‍্যোশাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়ে মুম্বইয়ে পাড়ি দেন রানু। এর পর রাতারাতি তিনি হয়ে উঠেছেন সেলিব্রেটি। এই রকম ঘটনা সিনেমা তে দেখা গেলেও বাস্তবে কম দেখা যায়। কিন্তু রানুর জীবনে এমন ঘটনা সত্যি সিনেমা জগতের সঙ্গে যেন মেল রয়েছে। হিমেশ রেশমিয়ার হাত ধরে বলিউডে হাতে খড়ি রানুর। এর পর তার গানে মুগ্ধ হয়ে ৫৫ লাখ টাকার ফ্রাট উপহার দিয়েছেন বলিউড অভিনেতা সালমান খান। পাশাপাশি সলমন নাকি রানুকে ‘দাবাং থ্রি’-তে গানের জন্য প্রস্তাবও দিয়েছেন। স‍্যোশাল মিডিয়ায় ভাইরাল হওয়ার পর রানু প্রথমে জনপ্রিয় একটি টেলিভিশন শোয়ে হাজির হন। এরপর সেখান থেকে সোজা হিমেশ রেশমিয়ার স্টুডিয়োতে হাজির হন তিনি। কিন্তু রানুকে নিয়ে সম্প্রতি প্রখ্যাত গায়িকা লতা মঙ্গেশকর বলেছেন, কাউকে অনুকরণ করে বেশিদিন টিকে থাকা যায়না। রাণুকে নিয়ে তার বক্তব্য কে ভুল বুঝেছেন নেটিজেনরা। এমটাই বললেন সুরকার ও গায়ক হিমেশ রেশমিয়া।

তিনি বলেন, রাণু মণ্ডলকে নিয়ে লতা মঙ্গেশকরের বক্তব্যকে ভুল বুঝছেন নেটিজেনরা। প্রত্যেক শিল্পীর জীবনেই একজনের অনুপ্রেরণা দরকার।
“আমাদের ভেবে দেখতে হবে কোন পরিপ্রেক্ষিতে লতাজী এই মন্তব্য করছেন। কোনও সঙ্গীতশিল্পীকে নকল করা মোটেই ভাল নয়। তবে কারও থেকে অনুপ্রেরণা নেওয়া, খুবই প্রয়োজন।” বুধবার রাণু মণ্ডলের গানপ্রকাশ অনুষ্ঠানে এই মন্তব্য করেন তিনি। সেখানে হাজির ছিলেন রাণুও।

হিমেশ আরও বলেন, কুমার শানু তো সবসময় বলে এসেছেন তিনি কিশোর কুমারের দ্বারা অনুপ্রাণিত। নিজের গায়কীর প্রসঙ্গ টেনে সুরকার বলেন, তাঁর হাই পিচে গান গাওয়া নিয়ে অনেক সমালোচনা হয়েছে। তিনি নাকি সুরে গান করেন বলে ব্যঙ্গও করেছেন অনেকে। কিন্তু, আন্তর্জাতিক স্তরে এটাই এখন ট্রেন্ড, দাবি হিমেশের।

“হ্যাপি হার্ডি অ্যান্ড হির” ছবির জন্য হিমেশের সুরে গান গেয়েছেন রানাঘাটের রাণু। মোট তিনটি গান এখনও পর্যন্ত রেকর্ড করেছেন তিনি। রানাঘাটের রাণু মণ্ডলের গান এক সহমর্মীর উদ্যোগে সোশ্যাল মিডিয়ায় আপলোড হবার পরই তা ভাইরাল হয়ে যায়। রেলওয়ে প্ল্যাটফর্ম থেকে প্রায় স্বপ্নের উড়ানে চড়ে বলিউডে পা রাণুর। স্ট্রিট সিঙ্গার থেকে তাঁর বলিউডে প্লে-ব্যাক সিঙ্গার হয়ে ওঠার গল্প এখন নেটদুনিয়ার অন্যতম চর্চার বিষয়।
রাণু মণ্ডল লতা মঙ্গেশকরের গাওয়া “এক পেয়ার কা নাগমা হ্যায়” গেয়ে নজর কাড়েন। কিন্তু লতাজী রাণু প্রসঙ্গে কথা বলতে গিয়ে বলেন, প্রত্যেক শিল্পীরই নিজস্বতা থাকা দরকার। অনুকরণ করে বেশিদূর এগনো যায় না।