বিপন্ন মানবতা

সমীরণ খাতুন

আমি যে দেখেছি গোপন হিংসায়

রক্তাক্ত আজ প্রকাশ্য রাজপথ।

ক্ষত বিক্ষত অসহায় শিশুর লাশ মায়ের বুকে,

অপরাধী চালাচ্ছে সমগ্র দেশজুড়ে বিজয় রথ।

দানবরূপি মানবগুলো ধর্মান্ধ তারা উন্মত্ত।

সাম্প্রদায়িকতার বীজ বপন করে বাতাসকে করছে বিষাক্ত।

যুগের হাওয়া গায়ে লাগিয়ে শিক্ষক আজ আদর্শহারা,

টাকার লোভে ডাক্তারবাবু খুলছে কষাইখানা।

দাঙ্গাবাজরা আপন স্বার্থে ছড়িয়ে চলেছে বিদ্বেষ,

আপন সন্তানের জানাজাতে ইমাম দিলেন সম্প্রীতি বজায়ের আদেশ।

এমনিতর মহানুভাব মানুষকে ভীরু অপবাদ দেয় কাপুরুষ,

প্রমাণ করতে চায় ‘সন্ত্রাসী’ বলে,

ধর্মান্ধরা হারিয়েছে আজ হুশ।

অস্ত্রাহাতে দাপিয়ে বেড়ায় অকারণে মানুষ করে খুন,

মানবতার শত্রু তারা শ্লোগানে ভরা ভুল।

সন্ত্রাসী প্রমাণ করতে গিয়ে ঘাটলো জীবনের পান্ডুলিপি,

প্রমাণ হলো তিনি শান্তিকামী, পূর্বপুরুষ স্বাধীনতা সংগ্রামী।

পুত্রশোক বুকে চেপে ইমাম রশিদি দিলেন শান্তির বার্তা,

প্রমাণ করলেন সন্ত্রাসী নয় ইসলামের আদর্শ শিক্ষা দেয় মাদ্রাসা।

মানবরূপে ফিরে এসো, আহ্বান করি, দেবো সোনালি জ্যোৎস্না,

কলম ছেড়ে কোমল হাতে হাতিয়ার তুলতে বাধ্য করোনা।

প্রতিহিংসা নয়, চাই সুবিচার নই আমরা দূর্বল।

ক্ষমার মহাত্মকে দূর্বল ভাবো, তাই সংকল্পে আমরা অবিচল।

রোজ প্রভাতে স্নিগ্ধ আলো যেমন ছড়িয়ে পড়ে তীরে।

তেমনিভাবে শান্তি ফিরুক আমজনতার ভিড়ে।