হাজার হাজার জেল বন্দীকে পুড়িয়ে মারছে সিরিয়া প্রশাসন৷ সিরিয়ান প্রেসিডেন্ট বাসার-আল-আসাদের সরকারের বিরুদ্ধে এমনই অভিযোগ এনেছে আমেরিকা৷ এই বিষয়ে প্রমাণ হিসাবে ২০১৫-এর একটি স্যাটেলাইট ছবিও প্রকাশ করেছে মার্কিন প্রশাসন৷ প্রমাণ লুকানোর জন্য কারাগারের ভেতরেই একটি চুল্লি বা ক্রিমেটোরিয়াম (বৈদ্যুতিক চুল্লি) স্থাপন করা হয়েছে বলেও অভিযোগ করা হয়েছে।

মার্কিন প্রশাসনের কর্মকর্তা স্টাউর্ট জোনস দাবি করেছেন, দামাস্কাসের বাইরে একটি জেলে প্রত্যেকদিন ফাঁসি দেয়া হচ্ছে প্রায় পঞ্চাশ জন জেল বন্দীকে৷ সেই চিহ্ন আন্তর্জাতিক মহলের সামনে না আসে সেজন্যই পুড়িয়ে ফেলা হচ্ছে তাদের দেহ৷ যদিও স্যাটেলাইট চিত্র থেকেই প্রমাণিত হয় না যে নির্মাণটি একটি পোড়ানোর স্থান৷জোনস জানিয়েছেন, আন্তর্জাতিক মহলের সামনে এই তথ্য-প্রমাণ তুলে ধরার চিন্তা-ভাবনা চালাচ্ছে আমেরিকা৷ এছাড়া হুঁশিয়ারি দেয়া হয়েছে সিরিয়ার প্রেসিডেন্ট বাসার-আল-আসাদকে৷

কোনো নির্দিষ্ট তথ্য না থকলেও অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশানল রিপোর্টে বলা হয়েছে ২০১১ থেকে ২০১৫-র মধ্যে সিরিয়ায় হত্যা করা হয়েছে প্রায় ১৩ হাজার জেল বন্দীকে৷ এমনকি চলতি বছরের ফেব্রুয়ারিতে সিরিয়ার জেলগুলোতে চলা এই অত্যাচারের বিরুদ্ধে সরব হয়েছিল মানবাধিকার সংগঠনটি৷ এই বিষয়ে রাষ্ট্রসংঘের তদন্তও দাবি করেছিল তারা৷ অত্যাচারিত জেল বন্দীদের মধ্যে বেশির ভাগই হলেন সিরিয়ায় প্রেসিডেন্ট বাসারের বিরোধী নাগরিক৷