টিডিএন বাংলা ডেস্ক: এক মনোরম মসজিদ বানিয়ে আলোচনায় উঠে এসেছে যুক্তরাজ্যের ক্যামব্রিজ। এই মসজিদকে ইউরোপের প্রথম পরিবেশবান্ধব মসজিদ বলা হচ্ছে।

একে পরিবেশবান্ধব মসজিদ বলার কারণ- মসজিদটি এমনভাবে নির্মিত হয়েছে যে, এটি শূন্য কার্বণ নির্মগন করবে। বৃষ্টির পানি সংরক্ষণ করে তা ব্যবহারের ব্যবস্থা রয়েছে এখানে। এ ছাড়া মসজিদের শীতাতপ নিয়ন্ত্রণ ব্যবস্থাটিও ভিন্নতর, যা পরিবেশদূষণ করবে না। আলোকিত করতে ব্যবহার হচ্ছে সৌরবিদ্যুৎ। মসজিদের বিদ্যুতের চাহিদা সূর্যের আলো থেকেই মেটানো হবে বছরজুড়েই। মূলত প্রকৃতিকে রক্ষা, বর্জ্য কমানো ও মিতব্যয়িতার ওপর ইসলামী বিধিনিষেধের গুরুত্ব তুলে ধরতেই এ মসজিদ তৈরি করা হয়েছে।

ইতিমধ্যে এমন পরিকল্পনার জন্য বিশ্বব্যাপী প্রশংসিত হয়েছে এ মসজিদ কর্তৃপক্ষ। এ ছাড়া প্রকৃতিবান্ধব নকশার জন্য মসজিদটির স্থপতি ও কর্তৃপক্ষকে পুরস্কৃতও করা হয়েছে। খ্যাতিমান স্থপতি জুগলের প্রতিষ্ঠান মার্ক বারফিল্ড মসজিদের নকশা করেছে। মসজিদটি নির্মাণে ব্যয় হয়েছে ২৩ মিলিয়ন পাউন্ড। এই ব্যয়ের সিংহভাগ দিয়েছে তুরস্ক সরকার ও দেশটির বেসরকারি কোম্পানি ইয়াপি মেরকেজি।

গত বৃহস্পতিবার মসজিদের উদ্বোধন করেছেন তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রজব তৈয়ব এরদোগান। এ সময় ‘ইসলামী সন্ত্রাসবাদ’ বাক্যটিকে প্রত্যাখ্যান করে তুরস্কের প্রেসিডেন্ট বলেন, একজন মুসলিম সন্ত্রাসী হতে পারে না এবং ইসলাম সন্ত্রাসী তৈরি করে না। তুরস্কের বার্তা সংস্থা আনাদোলু জানিয়েছে, উদ্বোধনকালে এরদোগান বলেন, মসজিদটি ইসলাম বিরোধিতা বেড়ে যাওয়ার প্রতি একটি দৃষ্টান্তমূলক জবাব হতে পারে। আমি মনে করি, এই মসজিদ যেটি থমবারের মতো বিদ্বেষের বিরুদ্ধে সৌহার্দের প্রতীক হিসেবে দাঁড়িয়েছে। মহান আল্লাহর ইচ্ছায়, এটি আগামী দিনে ঐক্যবদ্ধতা, সংলাপ ও শান্তি প্রসারের কেন্দ্রে পরিণত হবে।
এ সময় এরদোগানের সঙ্গে সহধর্মিণী এমিলি এরদোগান এবং দেশটির ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন। ক্যামব্রিজ শহরের মিল রোডে নির্মিত এই পরিবেশবান্ধব মসজিদে একসঙ্গে এক হাজার মুসল্লি নামাজ পড়তে পারবেন।