টিডিএন বাংলা ডেস্ক: এক সময় বর্ণবাদ প্রথার ভয়াবহতা দেখা গিয়েছিল দক্ষিণ আফ্রিকায়। সেই প্রথার বিরুদ্ধে দীর্ঘদিন ধরে লড়াই করেছিলেন দক্ষিণ আফ্রিকার কৃষ্ণাঙ্গ নেতা নেল-সন ম্যান্ডেলা। বর্ণবাদের বিরুদ্ধে দীর্ঘ লড়াই করে লাঞ্চিত ও অবহেলিত মানুষদের মুক্তি এনে দিয়েছিলেন তিনি। অভিবাসন আইন সংশোধনের মাধ্যমে দক্ষিণ আফ্রিকায় এই ভয়ঙ্কর প্রথার অবসান ঘতিয়ে আজ থেকে ২৬ স্বাধীনতা লাভ করে। ধীরে ধীরে নেল-সন ম্যান্ডেলার দেশে স্বাধীনতার ২৬ বছর পর ফের বর্ণবাদের আনাগোনা শুরু হচ্ছে বলে অভিযোগ।

চলতি মাসের ১ তারিখে সেই অভিবাসন আইন সংশোধন করেছে দক্ষিণ আফ্রিকা বর্তমান এএনসি সরকার। এরপর ফের সেখানকার জনসাধারণের অধিকার হরণ করা হচ্ছে, এমনটাই অভিযোগ করেছে মানবাধিকার সংস্থাসহ দেশটির একাধিক অভিবাসী নেতা। অভিবাসন আইন সংশোধনের মাধ্যমে চলতি মাস থেকে দক্ষিণ আফ্রিকায় বসবাসরত ২৬ লাখ বৈধ ও ১০ লাখেরও বেশি অবৈধ অভিবাসীদের অধিকারকে সংকুচিত এবং আশ্রয়ের মর্যাদাগুলি ছিনিয়েছে সরকার।

নতুন সংশোধিত আইন অনুযায়ী কোন অভিবাসী দক্ষিণে প্রবেশ করলেই সীমান্তে দায়িত্ব নিয়োজিত ইমিগ্রেশনের কাছে বায়োমেট্রিকসসহ সকল প্রয়োজনীয় তথ্য সরবরাহ করতে হবে। এছাড়া যেসব অভিবাসী তাদের দেশ ছেড়ে দক্ষিণ আফ্রিকায় আশ্রয় নেয়ার সুনির্দিষ্ট রাজনৈতিক কারণ দেখাতে ব্যর্থ হবে তাদেরকে নির্দিষ্ট একটি সময়ের জন্য দক্ষিণ আফ্রিকায় বসবাসের সুযোগ দেয়া হবে। এরপর স্বদেশে ফেরত যেতে হবে। এছাড়া আশ্রয় নেয়া কোনো অভিবাসী দক্ষিণ আফ্রিকায় কোনো রাজনৈতিক কর্মকাণ্ডে অংশগ্রহণ করতে পারবেনা।

এসব বেশ কয়েকটি ধারা সংযোজন করে অভিবাসন আইন সংশোধন করে গেজেট প্রকাশ করলে অভিবাসী নেতারা এর তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়ে এ সংশোধিত আইনের বিরুদ্ধে আদালতে মামলা করার হুমকি দিয়েছে এবং আজ দক্ষিণ আফ্রিকার বিভিন্ন শহরে অভিবাসীরা এ আইনের বিরুদ্ধে সভাসমাবেশ করেছে।

শরণার্থী এবং আশ্রয়প্রার্থীদের প্রতিনিধিরা বলেছেন, তারা দক্ষিণ আফ্রিকার সংবিধানের আওতাধীন বাকস্বাধীনতা এবং মতপ্রকাশের সীমাবদ্ধতার বিষয়ে নতুন আইনকে চ্যালেঞ্জ জানাতে আদালতে যাবেন।

দক্ষিণ আফ্রিকা মানবাধিকার কমিশন সংশোধিত অভিবাসী আইনের কারণে অভিবাসীদের মানবাধিকার হরণ করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন এবং সরকারকে সংশোধিত আইনটি পরিবর্তনের আহ্বান জানান। অপরদিকে অভিবাসন আইনটি সংশোধিত হওয়ায় দক্ষিণ আফ্রিকায় বসবাসকারী সাড়ে তিনলক্ষ বাংলাদেশি নাগরিক আতংকিত হয়ে পড়েছে এবং আইনটি কার্যকরের পর থেকে চলতি সপ্তাহে অন্তত ১শ বাংলাদেশি নাগরিক ইতিমধ্যে গ্রেফতার হয়েছেন।

তবে সরকারের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় বলছে,অভিবাসীদের সঠিক পরিসংখ্যান নির্ধারণ করতে এবং অভিবাসীদের নিরাপত্তা ও মৌলিক অধিকার নিশ্চিত করতে এ আইন সংশোধন করা হয়েছে।